default-image

করোনাভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় সোমবার থেকে সাত দিন চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সিজিএম) ও চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের কার্যক্রম সীমিত করা হয়েছে। পাশাপাশি অন্যান্য নিম্ন আদালতের কার্যক্রম না চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

একই সময়ে হাইকোর্ট বিভাগের বিচারিক কার্যক্রম সীমিত পরিসরে পরিচালিত হবে। সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার গোলাম রব্বানি স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এই তথ্য জানানো হয়।

হাইকোর্টের বিচার কার্যক্রম প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের প্রজ্ঞাপন বলছে, আগামীকাল ৫ এপ্রিল থেকে অতীব জরুরি বিষয়ে রিট, দেওয়ানি ও ফৌজদারি–সংক্রান্ত একটি করে ডিভিশন বেঞ্চ এবং কোম্পানি ও অ্যাডমিরালটি সংক্রান্ত আরেকটি বেঞ্চ ভার্চ্যুয়াল শুনানি গ্রহণ করবেন।

বিজ্ঞাপন

নিম্ন আদালতের বিচার কার্যক্রম প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, করোনাভাইরাস বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সিজিএম ও সিএমএম আদালতের কার্যক্রম সীমিত করা হয়েছে। অন্য সব অধস্তন আদালত ও ট্রাইব্যুনালের কার্যক্রম পরিচালনা না করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তবে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে সিজিএম ও সিএমএম আদালতের একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে উপস্থিত থেকে বিচারকাজ পরিচালনা করবেন।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, যে সকল মামলায় আসামিকে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত জামিন দেওয়া হয়েছে বা যে সকল মামলায় নির্দিষ্ট সময়ের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ দেওয়া হয়েছে, সেসব মামলার জামিন ও অন্তর্বর্তীকালীন আদেশের কার্যকারিতা দুই সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে। অধস্তন আদালতে কর্মরত সকল বিচারক এবং আদালতের কর্মচারীদের কর্মস্থল ত্যাগ না করার নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন