ঠাকুরগাঁওয়ের কৃষ্ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে ঠাকুরগাঁও-পঞ্চগড় মহাসড়ক। কিন্তু বিদ্যালয়ের চারপাশে সীমানাপ্রাচীর নেই। এ কারণে বিদ্যালয়ের মাঠে ফুটবল ও ক্রিকেট খেলার সময় বল সড়কে চলে যায়। শিক্ষার্থীরা বলের জন্য সড়কে যায়। এতে দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে।
বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিদ্যালয়টি ১৯৪২ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমানে এখানে পাঁচজন শিক্ষক ও ২৮২ জন শিক্ষার্থী আছে।
সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা গেছে, মহাসড়কঘেঁষা বিদ্যালয়টির খেলার মাঠ পেরিয়ে ফুটবল ও ক্রিকেটের বল মহাসড়কের অন্য পাশে চলে যাচ্ছে। শিক্ষার্থীরা যানবাহন উপেক্ষা করে বল আনতে সড়ক পার হচ্ছে। অনেক শিক্ষার্থী সড়কের ওপারের দোকানে জিনিসপত্র কিনতে যাচ্ছে।
পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী দেলোয়ার হোসেন বলে, খেলতে গিয়ে অনেক সময় ফুটবল আনতে রাস্তার ওপাশে যেতেই হয়। স্কুলের সীমানা দেয়াল থাকলে সহজে বল আর রাস্তায় যেত না।
বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রেজিয়া সামসী বলেন, বিদ্যালয়ের ভবনটি মহাসড়কের একেবারে পাশে হওয়ায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। বিদ্যালয়ের সীমানাপ্রাচীর না থাকায় বাচ্চাদের নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না। বাচ্চারা সুযোগ পেলেই রাস্তার ওপারে চলে যায়। এ রাস্তায় সব ধরনের যান চলাচল করে। এতে যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।
বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম প্রহরী রবিউল ইসলাম জানান, যে সময়টুকু ক্লাস থাকে না, তখন শিক্ষার্থীদের চোখে চোখে রাখতে হয়। এ কারণে ওই সময় অন্য কোনো কাজ করতে পারেন না তিনি।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গৌরাঙ্গ চন্দ্র রায় বলেন, পাহারায় থাকার পরও শিক্ষার্থীরা অনেক সময় ক্লাসের ফাঁকে দৌড়ে ঝুঁকি নিয়ে মহাসড়কের ওপারে দোকানে চলে যায়। এ ছাড়া বিদ্যালয়ের মাঠ নিচু হওয়ায় বর্ষাকালে পানি জমে যায়। সমস্যাগুলো উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন