রফিক আজমের প্রতিষ্ঠান সতত আর্কিটেকচার ফর গ্রিন লিভিংয়ের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান স্থপতি রফিক আজম।

১৯৮৩ সাল থেকে রফিক আজম হলেন নবম স্থপতি, যিনি সন্মানজনক রবার্ট ম্যাথু অ্যাওয়ার্ডে আজীবন সন্মাননা পেলেন। এর আগে অস্ট্রেলিয়ার ফিলিপ কক্স (১৯৮৩), যুক্তরাজ্যের অরুপ অ্যাসোসিয়েটস (১৯৮৫), ভারতের রাজ রেওয়াল (১৯৮৯), হ্যাম্পশায়ার কাউন্টি কাউন্সিল অব দ্য ইউকে (১৯৯১), ইয়ান রিচি আর্কিটেক্টস অব দ্য ইউকে (১৯৯৪), অস্ট্রেলিয়ার গ্রেগ বারগেস আর্কিটেক্টস (১৯৯৭), মালয়েশিয়ার টিআর হামজাহ অ্যান্ড ইয়েং (২০০০) এবং ভারতের বালকৃষ্ণ দোশী সন্মানজনক এ পুরষ্কার পেয়েছেন।

রফিক আজমের কাজ কমনওয়েলথের পরিপ্রেক্ষিত বিবেচনায় নিয়ে স্থাপত্যবিদ্যার উন্নয়নে উদ্ভাবনী ভূমিকা রেখেছে বলে ধরা হয়। এই ধারার স্থাপত্যবিদ্যার উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখার জন্যই এ পুরষ্কার দেওয়া হয়ে থাকে।

আগামী ৮ আগস্ট ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোতে সিএএ–এর সাধারণ অধিবেশন বসবে। সেখানে রফিক আজমের হাতে এ পুরষ্কার তুলে দেওয়া হবে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন