বেপরোয়া চালানোর কারণে খুলনা–ঢাকা মহাসড়কে একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। এতে ১০ যাত্রী আহত হন। শুক্রবার ঝিনাইদহে
বেপরোয়া চালানোর কারণে খুলনা–ঢাকা মহাসড়কে একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। এতে ১০ যাত্রী আহত হন। শুক্রবার ঝিনাইদহেছবি: প্রথম আলো

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় আজ শুক্রবার ট্রাক, প্রাইভেট কার ও অটোরিকশার ত্রিমুখী সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। তাঁরা একই পরিবারের সদস্য। এ ঘটনায় আহত হন চালকসহ আরও তিনজন। তাঁদের সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদিনই মুন্সিগঞ্জ ও বগুড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুজন করে এবং চট্টগ্রামে একজন নিহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও স্বজনের বরাতে প্রথম আলোর সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার মনকাশাইর এলাকায় কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে বেলা দুইটার দিকে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চারজনই একই পরিবারের সদস্য। তাঁরা হলেন কুমিল্লার মুরাদনগরের যাত্রাপুর গ্রামের নাবালক মিয়া (৬২), তাঁর স্ত্রী আয়েশা খাতুন (৫০), ছোট ভাইয়ের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৫০) ও নাতনি নাদিয়া আক্তার (৫)। আহত তিনজনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সিমেন্টভর্তি একটি ট্রাক ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে কুমিল্লার দিকে যাচ্ছিল। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি অটোরিকশার সঙ্গে ট্রাকটির সংঘর্ষ হয়। এতে অটোরিকশাটি দুমড়েমুচড়ে ঘটনাস্থলেই তিন আরোহী নিহত হন। হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যান আরেকজন। অটোরিকশার সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ানোর পর সামনে থাকা ব্রাহ্মণবাড়িয়ামুখী অন্য একটি প্রাইভেট কারকে ধাক্কা দেয় ট্রাকটি। এতে প্রাইভেট কারের চালকসহ তিনজন গুরুতর আহত হন। তাঁরা হলেন ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার ঘাটিয়ারা এলাকার বিল্লাল হোসেন (২২), সুনামগঞ্জের নরসিংহপুরের সালমান (২৮) ও কুমিল্লার মুরাদনগরের খোরশেদ আলম (৫৫)।

দুর্ঘটনার পরপরই স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে হতাহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করেন। খবর পেয়ে কসবা থানা-পুলিশ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে হতাহত ব্যক্তিদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে। হাইওয়ে পুলিশ বলেছে, চালক ট্রাকটিকে অটোরিকশার ওপরে তুলে দেন। পরে প্রাইভেট কারকেও ধাক্কা দেয় ট্রাকটি।

বগুড়ার শেরপুরের মির্জাপুর আমবাগান এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে বিকেলে যাত্রীবাহী বাস দাঁড়িয়ে থাকা খালি ট্রাককে ধাক্কা দেয়। এ সময় ট্রাকটি সামনে থাকা অপর একটি ট্রাককে ধাক্কা দেয়। এতে দুই ট্রাকের মাঝে চারজন চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই দুজন নিহত হন। আহত হন দুজন।

মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগরের ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের হাঁসাড়া স্কুলগেট এলাকায় সকালে প্রাইভেট কারের চাপায় দাদি ও নাতির মৃত্যু হয়েছে। তাঁরা হলেন মিনু মল্লিক (৭০) ও অচিন মল্লিক (৮)। তাঁদের বাড়ি সিরাজদিখানের কালশুর গ্রামে। মিনু মল্লিক নাতিকে নিয়ে শ্রীনগরের নাগের পাড়ায় মেয়ের জামাইয়ের বাড়িতে বেড়িয়ে নিজের বাড়িতে ফিরছিলেন। হেঁটে ওই মহাসড়ক পার হওয়ার সময় প্রাইভেট কার তাঁদের চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই নাতি মারা যায়। আর মুমূর্ষু অবস্থায় মিনুকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হলে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ জনতা হাঁসাড়া স্কুলগেট এলাকায় ফুটওভারব্রিজের দাবিতে এক ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে রাখেন।

বগুড়ার শেরপুরের মির্জাপুর আমবাগান এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে বিকেলে যাত্রীবাহী বাস দাঁড়িয়ে থাকা খালি ট্রাককে ধাক্কা দেয়। এ সময় ট্রাকটি সামনে থাকা অপর একটি ট্রাককে ধাক্কা দেয়। এতে দুই ট্রাকের মাঝে চারজন চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই দুজন নিহত হন। আহত হন দুজন। ফায়ার সার্ভিস ও হাইওয়ে পুলিশ আহত দুজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে। নিহত দুজন দুই ট্রাকের চালক। তাঁরা হলেন আবু সাঈদ (২৪) ও আবু বক্কার (২৬)। তাঁদের বাড়ি একই উপজেলার বাগড়া গ্রামে। আহত দুজন তাঁদের সহকারী। রেজভি ট্রাভেলস নামের বাসটি ঢাকা থেকে রংপুর যাচ্ছিল। বালুবহনে নিয়োজিত ট্রাক দুটি মহাসড়ক সম্প্রসারণকাজে ব্যবহার করা হচ্ছিল। হাইওয়ে পুলিশ বলেছে, দুর্ঘটনার পর বাসচালক ও তাঁর সহকারী পালিয়েছেন। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে চট্টগ্রামের আনোয়ারার পিএবি সড়কের ঝিওরী মাজার গেট এলাকায় সকালে পিকআপ ভ্যান ও অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে অটোরিকশাচালক নিহত ও এর তিন যাত্রী আহত হয়েছেন। নিহত মোহাম্মদ জসিম উদ্দিনের (৩৫) বাড়ি একই উপজেলার জুঁইদণ্ডী গ্রামে। আহত তিনজন হলেন লোকমান হাকিম (৪০), মোহাম্মদ শাহাদত (২২) ও আরাফাত হোসেন সিরাজী (৩৫)। সংঘর্ষের পর অটোরিকশাটি দুমড়েমুচড়ে খাদে পড়ে যায়। খাদে পড়ে যায় পিকআপটিও। আহত ব্যক্তিদের চট্টগ্রাম মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। পিকআপের চালক ও সহকারী পালিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0