বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

‘৭০০ একর বনভূমি প্রশাসন একাডেমির জন্য বরাদ্দ’ শিরোনামে গত ৫ সেপ্টেম্বর প্রথম আলোতে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়। এটি যুক্ত করে ৭০০ একর ভূমি বরাদ্দ–ইজারা না দিতে নির্দেশনা চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শেখ এ কে এম মনিরুজ্জামান কবীর গত মাসে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। এর প্রাথমিক শুনানি নিয়ে গত ১১ অক্টোবর হাইকোর্ট রুলসহ ওই জায়গা বরাদ্দের কার্যক্রম তিন মাসের জন্য স্থগিত করেন। এই আদেশ স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে আবেদন করে, যা সোমবার চেম্বার আদালতে শুনানির জন্য ওঠে। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মো. মোরশেদ এবং রিটের পক্ষে আইনজীবী শেখ এ কে এম মনিরুজ্জামান কবীর শুনানিতে ছিলেন।

পরে শেখ এ কে এম মনিরুজ্জামান কবীর প্রথম আলোকে বলেন, হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ গত ১৯ অক্টোবর আবেদনটি করে। চেম্বার আদালত স্থগিতাদেশ না দিয়ে আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে আবেদনটি ২১ নভেম্বর শুনানির জন্য পাঠিয়েছেন।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য আরেকটি প্রশিক্ষণ একাডেমি নির্মাণ করতে ‘রক্ষিত বনভূমির’ ৭০০ একর জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভসংলগ্ন ঝিলংজা বনভূমির ওই এলাকা প্রতিবেশগতভাবে সংকটাপন্ন। বন বিভাগ এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির আপত্তি উপেক্ষা করে ভূমি মন্ত্রণালয় এ জমি বরাদ্দ দিয়েছে। বন বিভাগের দাবি, এ জমি তাদের।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন