বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদসহ কৃষি মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধিদল হাওর এলাকা পরিদর্শনে গেছে। আগাম বন্যার ফলে হাওরের ফসলের ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি সরেজমিন দেখা ও দিকনির্দেশনা দিতে তারা দিনভর স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছে। সেখানে সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, গত কয়েক দিনের ঢলে হাওরের সাড়ে তিন হাজার হেক্টর জমির ফসলে পানি প্রবেশ করেছে। এর অর্ধেক ফসলও নষ্ট হলে আর্থিক হিসেবে ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে ৫০ কোটি টাকা।

এ ব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সুনামগঞ্জ জেলার দায়িত্বে থাকা উপপরিচালক বিমল চন্দ্র সোম প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা এখন চেষ্টা করছি সামনে যে ঢল আসতে পারে, তা থেকে যাতে ফসল রক্ষা করা যায়।’ এরই মধ্যে প্রায় ৫০ কোটি টাকার ধানের ক্ষতির তথ্য উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাঁধগুলো দ্রুত মেরামত করা না গেলে ক্ষতি আরও বাড়তে পারে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ ও সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সম্ভাব্য ঢল মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার চার হাজার হেক্টর আয়তনের চাপতির হাওরে বাঁধ ভেঙে ঢলের পানিতে সব ফসল তলিয়ে গেছে। হাওরগুলোর ভূপ্রকৃতি অনেকটা ভাতের থালার মতো। মানে একবার পানি প্রবেশ করলে সেখান থেকে আর পানি বের করা যায় না। ফলে যা ফসল থাকে, তার বড় অংশের ক্ষতি হয়।

আগামী দু-তিন দিনের মধ্যে উজানে আবারও ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা আছে। তবে গতবারের চেয়ে বৃষ্টির পরিমাণ কিছুটা কম হতে পারে। নতুন
আরিফুজ্জামান ভূইয়া, বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী

সরকারের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র বর্তমানে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ৩৯টি নদ-নদীর পানির উচ্চতা পর্যবেক্ষণ করছে। এর মধ্যে মাত্র দুটির পানি বাড়ছে, বাকিগুলোর কমছে। যেসব অঞ্চলে বাঁধ ভেঙেছে, সেখানে মূলত নদী ও হাওরের সীমানা রক্ষাকারী বাঁধগুলো চুইয়ে ও ভেঙে পানি প্রবেশ করেছে।

এ ব্যাপারে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভূইয়া প্রথম আলোকে বলেন, আগামী দু-তিন দিনের মধ্যে উজানে আবারও ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা আছে। তবে গতবারের চেয়ে বৃষ্টির পরিমাণ কিছুটা কম হতে পারে। নতুন মেরামত হয়েছে এমন বাঁধগুলো ছাড়া বাকি বেশির ভাগ বাঁধ ভাঙার আশঙ্কা নেই।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাস অনুযায়ী, চলতি মাসের শেষের দিকে দেশের ভেতরে ও বাংলাদেশের উজানে ভারতের আসাম, মেঘালয়সহ পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন