বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হেফাজতে ইসলামের প্রয়াত আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী মাদ্রাসাটির মহাপরিচালক ছিলেন। গত বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর তিনি মারা যাওয়ায় পদটি শূন্য হয়। তাঁর মৃত্যুর পর শুরা কমিটির পক্ষ থেকে মাদ্রাসা পরিচালনায় এককভাবে কাউকে দায়িত্ব না দিয়ে তিন জ্যেষ্ঠ শিক্ষককে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এদিকে গত ১৯ আগস্ট মারা যান মাদ্রাসার শায়খুল হাদিস হেফাজতে ইসলামের আমির জুনায়েদ বাবুনগরী।

মাদ্রাসার গুরুত্বপূর্ণ দুই পদে থাকা দুই শিক্ষকের মৃত্যু, মহাপরিচালক পদ শূন্যসহ সব পদে দায়িত্ব বণ্টনের জন্য শুরা কমিটির বৈঠক ডাকা হয় সপ্তাহখানেক আগে।
শুরা কমিটির সূত্র জানায়, মাদ্রাসার মহাপরিচালকসহ গুরুত্বপূর্ণ আটটি পদে শিক্ষকদের মধ্য থেকে দায়িত্ব বণ্টন করা হবে।

দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোর নিয়ন্ত্রণ ও হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সদর দপ্তর হিসেবে এ মাদ্রাসার মহাপরিচালক হিসেবে কে আসছেন, সেটি দেখার অপেক্ষায় আছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। আহমদ শফীর শূন্যস্থানে কে আসীন হবেন, সেটি বৈঠক শেষে জানা যাবে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন