বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মাহমুদা খানম ভাসানী বলেন, ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে তাঁকে বিদেশে পাঠিয়ে সুচিকিৎসার সুযোগ দেওয়ার জন্য আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জোর দাবি জানাই।’

ভাসানীর নাতি হাবিব হাসান বলেন, ‘আমরা খালেদা জিয়াকে দেখতে গিয়েছিলাম। চিকিৎসকেরা আমাদের বলেছেন, তাঁর অবস্থা খারাপ। তাঁকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য আমরা ভাসানির পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি জানাচ্ছি।’

ভাসানীর আরেক নাতি মাহমুদুল হক বলেন, ‘মাওলানা ভাসানী আজীবন মজলুমের পক্ষে লড়াই করেছেন। যেখানে অন্যায়, সেখানেই তিনি ছিলেন প্রতিবাদী কণ্ঠ। খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ দেওয়ার জন্য মাওলানা ভাসানীর পরিবারের পক্ষ থেকে আমরা সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।’

খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে যাওয়া ভাসানীর পরিবারের অন্য সদস্যরা হলেন ভাসানীর বড় মেয়ে রিজিয়া ভাসানী ও নাতনি সুরাইয়া সুলতানা।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান, বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান, ব্যক্তিগত চিকিৎসক এ জেড এম জাহিদ হোসেন, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহ উদ্দিন ও মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার।

৭৬ বছর বয়সী খালেদা জিয়া অনেক বছর ধরে আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন। ১৩ নভেম্বর থেকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাঁকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। খালেদা জিয়ার চিকিৎসাসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, খালেদা জিয়ার অবস্থা খুবই সংকটাপন্ন। লিভারের জটিলতায় তাঁকে রক্ত দিতে হচ্ছে।

মঙ্গলবার রাতে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে খালেদা জিয়াকে নিয়ে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়ে আসছে বিএনপি। এ জন্য তারা কর্মসূচিও পালন করছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন