বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নারায়ণগঞ্জ জেলা সিআইডির পরিদর্শক মো. আতাউর রহমান আজ বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ডিএনএ সংগ্রহের পর হাড়গোড়ের মর্গে সংরক্ষণ করা অংশবিশেষগুলো চার মরদেহের। এ ছাড়া ৯ সেপ্টেম্বর আরও একজনের মরদেহের হাড়গোড় উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

গত ৮ জুলাই হাসেম ফুডসে আগুনে ৫১ জন দগ্ধ হয়ে মারা যান। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গ থেকে ডিএনএ পরীক্ষা শেষে অঙ্গার হওয়া ৪৫ জনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন