default-image

কুমিল্লা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহাসড়কের বুড়িচং উপজেলার কংশনগর বাজার থেকে দেবীদ্বার পৌর এলাকার নিউমার্কেট পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার সড়ক খানাখন্দে ভরা। দুই বছর যাবৎ সড়ক সংস্কার না হওয়ায় প্রায়ই মহাসড়কের এসব খানাখন্দে যানবাহন আটকা পড়ে।
সরেজমিনে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে দেখা গেছে, দেবীদ্বার উপজেলার নিউমার্কেট থেকে বুড়িচংয়ের কংশনগর বাজার পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটারের মধ্যে দেবীদ্বার নিউমার্কেট, বানিয়াপাড়া, বারেরা, বেগমাবাদ, কালিকাপুর, হাতিমারা, আজিজনগর, জাফরগঞ্জ, কংশনগরসহ বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে।
শীত মৌসুমে ওই মহাসড়ক দিয়ে মাটিবাহী ট্রাক ও ট্রাক্টর এবং সিলেটের ভোলাগঞ্জ ও জাফলং থেকে পাথরবাহী ভারী ট্রাক চলাচল করায় বড় বড় গর্ত তৈরি হয়েছে। এসব গর্তে বালু পড়ে আছে। চালকেরা গর্ত ভরাট মনে করে এর ওপর দিয়ে চালানোর সময় যানবাহন আটকা পড়ে।
গত বৃহস্পতিবার সকাল আটটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত ওই সড়কে টানা ১০ ঘণ্টার যানজট ছিল। মহাসড়কের ওই অংশে পাঁচটি ট্রাক গর্তে পড়ে আটকে যায়। পরে সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) একটি রেকার এনে দুপুরে তিনটি ট্রাক সরায়। তবে আজিজনগর এলাকার দুটি ট্রাক সন্ধ্যা পর্যন্ত সরানো যায়নি। পরদিন শুক্রবার ভোরে ট্রাক দুটি সরানো হয়।
কংশনগর বাজারের ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেন বলেন, কুমিল্লা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহাসড়ক দিয়ে সিলেট ও চট্টগ্রামের বাস চলাচল করে। এ ছাড়া ময়মনসিংহ ও ভৈরবের গাড়িও চলাচল করে। ব্যস্ত এই মহাসড়ক দীর্ঘদিন যাবৎ সংস্কার না করায় ক্রমাগত দুর্ভোগ বাড়ছে।
কুমিল্লা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়াগামী সুগন্ধা পরিবহনের একজন চালক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘সরকারি দলের লোকদের চাঁদা দিই। কিন্তু ওরা সড়ক মেরামতের জন্য নেতাদের বলে না। এ সড়ক দিয়ে ঝুঁকি নিয়েই বাস চালাই।’
বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কুমিল্লা জেলার সভাপতি এ বি এম আতিকুর রহমান বলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দুই দফা মহাসড়ক পরিদর্শন করেন। তিনি দ্রুত সড়ক সংস্কারের আশ্বাস দেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো সংস্কারকাজ শুরু হয়নি।
এ ব্যাপারে কুমিল্লা সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী সাইফ উদ্দিনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করেও তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।
সওজের উপসহকারী প্রকৌশলী অহিদুজ্জামান বলেন, সড়ক সংস্কারের জন্য ১৩ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। অবরোধের কারণে কাজ করা যাচ্ছে না। শিগগিরই কাজ শুরু হবে।
দেবীদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, মহাসড়কের ওই অংশের অবস্থা খুবই খারাপ। সড়কটি দ্রুত সংস্কার করার জন্য সওজের নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা হয়েছে। তারা বলছেন, শিগগিরই সংস্কারকাজ শুরু হবে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন