শিক্ষকেরা জাতি গড়ার কারিগর। শিক্ষার্থীদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তাঁদের ভূমিকা অপরিসীম। সম্মানিত এই শিক্ষকদের মধ্যে কেউ কেউ থাকেন প্রিয় শিক্ষক, যাঁদের দিকনির্দেশনা, শিক্ষাদানের পদ্ধতি, স্নেহ-ভালোবাসা শিক্ষার্থীদের মনে আলাদা করে দাগ কাটে। এমন ১২ জন শিক্ষককে সম্মাননা জানিয়েছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইপিডিসি ও প্রথম আলো।

৫ সেপ্টেম্বর বিশ্ব শিক্ষক দিবস। শিক্ষক দিবসের প্রাক্কালে শুক্রবার রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ‘আইপিডিসি-প্রথম আলো প্রিয় শিক্ষক সম্মাননা’ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

default-image

প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের ১ জন শিক্ষককে আজীবন এবং ১১ জনকে প্রিয় শিক্ষক সম্মাননা দেওয়া হয়। পরিয়ে দেওয়া হয় উত্তরীয়, হাতে তুলে দেওয়া হয় ক্রেস্ট ও সনদ। অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষানুরাগী, শিল্পী, সাহিত্যিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

অতিথিরা আসনে বসতেই ঢং ঢং করে বেজে উঠল স্কুলের ঘণ্টা। সানিডেইল স্কুলের একদল শিক্ষার্থী মঞ্চে এসে গাইল জাতীয় সংগীত। স্কুলের আবহেই শুরু হয় শিক্ষকদের সম্মাননা জানানোর আনুষ্ঠানিকতা। প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক বললেন, ‘আমাদের প্রিয় ব্যক্তিত্ব শিক্ষক। দ্বিতীয় গৃহ স্কুল। দ্বিতীয় বাবা-মা শিক্ষক-শিক্ষিকারা। এই শিক্ষকদের ভালোবাসা-সম্মান জানাতেই এই আয়োজন।’

default-image

সঞ্চালকের ভূমিকায় ছিলেন আইপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মমিনুল ইসলাম। তিনি বলেন, শিক্ষকেরা শুধু শেখাননি, ভালো মানুষ হতে অনুপ্রাণিত করেছেন। শিক্ষকদের সামাজিক সম্মান ও আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত না করলে মননশীল ও রুচিশীল সমাজ গড়া সম্ভব হবে না।

ফরিদপুর উচ্চবিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক জগদীশ চন্দ্র ঘোষ। এলাকায় সবাই তাঁকে চেনেন ‘তারাপদ স্যার’ নামেই। ৯১ বছরের জীবনের বেশির ভাগ সময় কেটেছে শিক্ষকতা করে। শিক্ষকতার পাশাপাশি রাজনীতি, সমাজ উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডেও ছিল সরব অংশগ্রহণ। জগদীশ চন্দ্র ঘোষ পেয়েছেন প্রিয় শিক্ষক আজীবন সম্মাননা।

অসুস্থ থাকায় জগদীশ চন্দ্র নিজে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারেননি। তাঁর পক্ষে সম্মাননা নেন তাঁর নাতনি মৌমিতা ঘোষ। সম্মাননা তুলে দেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। শিক্ষক সম্মাননা অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে আনিসুজ্জামান বলেন, দেশের বিভিন্ন প্রান্তের শিক্ষক শিক্ষাক্ষেত্রে তাঁদের জীবন কাটিয়েছেন। নিবেদিতপ্রাণ শিক্ষক হিসেবে ছাত্রদের মনে দাগ কেটেছেন। এই সম্মাননা কেবল ১২ জনের নয়, সমগ্র শিক্ষকসমাজের।

সারা দেশ থেকে প্রিয় শিক্ষক সম্মাননার জন্য ১ হাজার ৬৭৪টি মনোনয়ন জমা পড়ে। সেখান থেকে ৬ সদস্যের জুরিবোর্ড ১২ শিক্ষককে সম্মাননার জন্য নির্বাচন করে। জুরিবোর্ডের সদস্যরা মঞ্চে আসেন। তাঁদের পক্ষে যশোর শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান আমিরুল আলম খান বলেন, ‘কর্মে সৃজনশীলতাকে খুঁজেছি। কোচিং ব্যবসায় জড়িত কেউ যেন এই সম্মাননা না পান, তা নিশ্চিত করতে চেয়েছি।’

জুরিবোর্ডের সদস্যরা সম্মাননা তুলে দেন যশোর সম্মিলনী ইনস্টিটিউশনের সাবেক শিক্ষক তারাপদ দাস এবং ময়মনসিংহের বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাছিমা আক্তারকে। তারাপদ দাস অসুস্থ থাকায় তাঁর ছেলে দীপঙ্কর দাস সম্মাননা গ্রহণ করেন।

রাঙামাটি সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক নিরুপা দেওয়ানের পক্ষে সম্মাননা নেন তাঁর শিক্ষার্থী শিল্পী কনকচাঁপা চাকমা। তাঁর হাতে সম্মাননা তুলে দেন সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটির উপাচার্য পারভীন হাসান।

কর্মময় জীবনের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন ময়মনসিংহের রণসিংহপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মফিজ উদ্দিন। তিনি ছিলেন কিশোরী ফুটবলার তৈরির জন্য বিখ্যাত কলসিন্দুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী শিক্ষক। আলোকিত সমাজ গড়তে জীবনের বড় অংশ কাটিয়েছেন সাতক্ষীরার ৩০ নম্বর আলীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক মো. আবদুস সালাম। সম্মাননা তুলে দেন জাতীয় ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা এবং শিল্পী সৈয়দ আব্দুল হাদী।

মাশরাফি বিন মুর্তজা বলেন, বাংলাদেশ আজ যে পর্যন্ত এসেছে, তাতে শিক্ষকদের অবদান অসামান্য। এ অনুষ্ঠানে এসে ছোটবেলায় সান্নিধ্য পাওয়া শিক্ষকদের কথা মনে পড়ছে।

default-image

শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে জয় করেছেন টাঙ্গাইলের আউলিয়াবাদ মাজার দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক আবুল হাশেম মিয়া। আনন্দের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা দেন বাগেরহাটের কাড়াপাড়া শরৎচন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আসাদুল কবির। এই দুজনকে সম্মাননা তুলে দেন ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য চৌধুরী মফিজুর রহমান এবং প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটির উপাচার্য আবদুল হান্নান চৌধুরী।

সম্মাননা দেওয়া হয় শিক্ষার্থীবান্ধব হিসেবে পরিচিত গাইবান্ধার শিবরাম আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক নুরুল আলম এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ফতেহপুর কেজি বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহজাহান কবীরকে। সম্মাননা তুলে দেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এ কে এম নূর-উন-নবী এবং ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস, অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজির (আইইউবিএটি) উপাচার্য আবদুর রব।

শিক্ষার্থীদের স্বপ্নের পথে চলা শিখিয়েছেন চট্টগ্রামের জামালখান কুসুমকুমারী সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক লুৎফুন্নিছা খানম। শিক্ষার্থীদের সন্তানের মতো আগলে রেখেছেন চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ সরকারি কলোনি উচ্চবিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক সফিক উল্ল্যা। তাঁদের হাতে সম্মাননা তুলে দেন রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের সাবেক উপাধ্যক্ষ ফেরদৌস আরা বেগম এবং স্যার জন উইলসন স্কুলের অধ্যক্ষ সাবরিনা শহীদ।

default-image

অনুষ্ঠানে প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান বলেন, প্রথম আলো শুধু লেখে না, বলে না; কিছু করারও চেষ্টা করে। তারই অংশ হিসেবে মাদকবিরোধী আন্দোলন, অ্যাসিড-সন্ত্রাসবিরোধী আন্দোলন, মেধাবীদের শিক্ষাবৃত্তি দেওয়া, ভাষা প্রতিযোগ, গণিত অলিম্পিয়াডসহ নানা আয়োজন করে প্রথম আলো। এরই ধারাবাহিকতায় জাতি গড়ার কারিগর শিক্ষকদের সম্মান জানাতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী অদিতি মহসিন ও দিনাত জাহান।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0