সরকারি কর্মকর্তাসহ ২৬ জনের মুক্তিযোদ্ধার সাময়িক সনদ ও গেজেট বাতিল করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এঁদের মধ্যে পরিকল্পনা কমিশনের শিল্প ও শক্তি বিভাগের যুগ্ম প্রধান, শিক্ষক, ব্যাংকার, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তাসহ সরকারি-বেসরকারি দুই ধরনের ব্যক্তিই রয়েছেন।
কয়েক দিন আগে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপনে সই হলেও গতকাল সোমবার মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিষয়টি জানানো হয়।
মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল হওয়া এই কর্মকর্তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিরা হলেন পরিকল্পনা কমিশনের শিল্প ও শক্তি বিভাগের যুগ্ম প্রধান বেগম শামীমা আখতার; চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ (প্রাণিবিদ্যার অধ্যাপক) মো. রহমত আলী বিশ্বাস; সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের সহযোগী অধ্যাপক (গণিত) মো. কামালউদ্দিন; স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপপরিচালক (সিডিসি) ডা. মো. ফজলুর রহমান; জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. ইব্রাহিম মিয়া; বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (বাপাউবো) নকশা সার্কেল-৩-এর নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে এম নুরুল ইসলাম; বাপাউবোর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (শাহবাজপুর গ্যাসফিল্ড রক্ষা প্রকল্প) মো. আবদুল মতিন; সোনালী ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী কর্মকর্তা ইফতেখার উদ্দিন; অগ্রণী বাংকের নওগাঁ বোয়াললিয়া শাখার এফএএলডিএ মো. খালেদুর রহমান; কাস্টম, এক্সাইজ ও ভ্যাটের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা আবদুস সামাদ; পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডিইও মো. এনামুল হক; সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী (সড়ক উপবিভাগ-১, নারায়ণগঞ্জ) দিলীপ কুমার দাস; বান্দরবান সমাজসেবা অফিসারের কার্যালয়ের প্রশাসনিক যুক্ত জুনিয়র হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মো. মাসুদ আহমেদ; আবহাওয়া অধিদপ্তরের এমএলএসএস আবদুল হান্নান শেখ; জনতা ব্যাংকের সাপোর্ট স্টাফ ক্যাটাগরি-২ মো. হাসমতুল্ল্যা। এ ছাড়া কয়েকজন শিক্ষক ও বেসরকারি পর্যায়ের ব্যক্তি রয়েছেন।
এর আগেও কয়েক দফায় বেশ কিছু মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল করা হয়। যাঁদের মধ্যে কয়েকজন সচিবও রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন