প্রস্তাবিত শিক্ষা আইন-২০১৬ বাতিলের পদক্ষেপ নিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। অন্যথায় ‘আন্দোলন কত প্রকার ও কী কী’, তা দেখিয়ে দেওয়া হবে বলে হুমকি দিয়েছে দলটি।
গতকাল শুক্রবার জুমার নামাজের পর রাজধানীর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের উত্তর সড়কে বিক্ষোভ সমাবেশে সংগঠনটির ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি এ টি এম হেমায়েত উদ্দিন এ হুমকি দেন। ইসলামী আন্দোলন খসড়া শিক্ষা আইনকে ‘নাস্তিক্যবাদী’ ও ‘ইসলামবিরোধী’ বলে অভিযোগ করে গতকাল বিক্ষোভ সমাবেশ করে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে দলের আমির ও চরমোনাইয়ের পীর সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম অভিযোগ করেন, প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পাঠ্যবই থেকে ইসলামি চিন্তা-চেতনার গল্প, রচনা, কবিতা এবং মহানবী (সা.)-এর জীবনচরিত বাদ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে এভাবে যে শিক্ষায় নাস্তিক্যবাদ শেখানো হয়, সেই বই আমরা পড়ব না। শুনেছি প্রধানমন্ত্রী নামাজ পড়েন। আমার মনে হয়, তাঁর অগোচরে এসব বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এটা এক বিরাট ষড়যন্ত্র। এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।’
সংগঠনের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে বলেন, ‘এই শিক্ষানীতি বন্ধ না করলে সরকার পতনের ডাক দেব।’
সমাবেশ শেষে বায়তুল মোকাররমের উত্তর সড়ক থেকে বিক্ষোভ মিছিল করেন ইসলামী আন্দোলনের নেতা-কর্মীরা।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন