'কেস' প্রকল্প নিয়ে সংসদীয় কমিটির ক্ষোভ

বিজ্ঞাপন
default-image

পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্মল বায়ু ও টেকসই পরিবেশ (কেস) প্রকল্প নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। এই প্রকল্পের প্রশিক্ষণ ও পরামর্শক নিয়োগে অনিয়ম হয়েছে বলে মনে করছে সংসদীয় কমিটি। সদ্য সমাপ্ত এই প্রকল্প মূল্যায়নের জন্য পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগে (আইএমইডি) পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংসদীয় কমিটি।

আজ সোমবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সংসদীয় কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়।

বৈঠক সূত্র জানায়, বৈঠকে নির্মল বায়ু ও টেকসই পরিবেশ প্রকল্প নিয়ে আলোচনা হয়। তাদের দেওয়া প্রতিবেদনে দেখা যায়, গত ১০ বছরে এই প্রকল্পের ২৯২ জন প্রশিক্ষণে বিদেশ গিয়েছেন। এক ব্যক্তি একাধিকবারও বিদেশ সফর করেছেন। আবার পরামর্শক নিয়োগে যে খরচ হয়েছে তাও বেশি। ২৮৪ কোটি ৭৮ লাখ ৯৮ হাজার কোটি টাকার মধ্যে প্রকল্পে ব্যয় হয়েছে ২২১ কোটি ৪৭ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে ৩৩ কোটি টাকার বেশি ব্যয় হয়েছে পরামর্শক নিয়োগে। প্রকল্প–সংশ্লিষ্ট নয়—এমন খাতেও অর্থ ব্যয় হয়েছে বলে সংসদীয় কমিটিতে অভিযোগ উঠেছে।

বৈঠক শেষে সংসদীয় কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, অতিরিক্ত প্রশিক্ষণে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এর সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। সংসদীয় কমিটি এ বিষয়ে একটি নীতিমালা করার ওপর জোর দিয়েছে। যাতে কিছুসংখ্যক প্রশিক্ষক তৈরি করে তাঁদের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দেওয়া যায়। এ ছাড়া পরামর্শক নিয়োগ নিয়েও প্রশ্ন আছে। প্রকল্পের কিছু কাজ ও ব্যয় যৌক্তিক মনে হয়নি। প্রকল্পটি আইএমইডিতে পাঠানো হবে।

সংসদ সচিবালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কমিটি সুন্দরবনের পরিবেশ সংরক্ষণে সুন্দরবন এলাকায় অবস্থিত শিল্প কারখানাগুলোর পরিবেশদূষণ মানবস্বাস্থ্যের জন্য কতটা ক্ষতিকর, তার সমন্বিত পরিসংখ্যানের জন্য জরিপ পরিচালনা করার সুপারিশ করেছে।

সাবের হোসেন চৌধুরী এ বিষয়ে বলেন, কমিটি মনে করে, সুন্দরবনের পরিবেশ সমৃদ্ধ করা উচিত। ওই এলাকায় যেসব শিল্পপ্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য পরিবেশ থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে, সেগুলোর ক্ষেত্রে এককভাবে পরিবেশের ওপর প্রভাব পরিমাপ না করে সম্মিলিতভাবে কী প্রভাব হবে, তা নিরূপণ করে সংসদীয় কমিটিতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন, উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার, নাজিম উদ্দিন আহমেদ, জাফর আলম ও রেজাউল করিম বৈঠকে অংশ নেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন