default-image

যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, ‘ডেভেলপমেন্ট মাইনাস ডেমোক্রেসি (গণতন্ত্র বাদ দিয়ে উন্নয়ন), এটা হতে পারে না। গণতন্ত্র সব পর্যায়ে দিতেই হবে। সাংবাদিকদেরও গণতান্ত্রিক অধিকার দিতে হবে। সাংবাদিক ধমক দিয়ে খামোশ করা গণতন্ত্র নয়। সাধারণ মানুষকে কথা বলার অধিকার দিতে হবে এবং ভোটের অধিকার দিতে হবে।’

আজ সোমবার বেলা পৌনে একটার দিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় বি. চৌধুরী এসব কথা বলেন। বিজয় দিবস উপলক্ষে যুক্তফ্রন্ট এই আলোচনার আয়োজন করে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, সংবিধান অনুসারে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) পূর্ণ ক্ষমতা আছে। সরকারি কোনো কর্মকর্তাকে বদলি করা, বরখাস্ত করা—এগুলো করার ক্ষমতা সরকারের এখন নেই। এ ক্ষমতা ইসির। ইসি যদি স্বাধীনভাবে দায়িত্ব পালন করে, এখনো সম্ভব একটা সুন্দর নির্বাচন করা। অংশগ্রহণ তো হয়েই গেছে। কিন্তু অংশগ্রহণ করলেই হবে না, যতক্ষণ না ইসি তার সঠিক দায়িত্ব পালন করবে। এই দায়িত্ব ইসি কতটুকু বুঝেছে, তা তাদের ব্যাপার। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করার দায়িত্ব তাদের।

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, গ্রামে-গঞ্জে বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে। বিদ্যুৎ আছে বলেই বাংলাদেশ শিল্প-বাণিজ্যে, ব্যবসায় এগিয়েছে। কিন্তু দুর্নীতি থাকলে অর্থনৈতিক অগ্রগতির বিরাট অংশ খেয়ে ফেলবে। আজকে সরকারব্যবস্থা, সমাজব্যবস্থা, সরকারবিরোধী দলে ভোট–বাণিজ্য হচ্ছে। এটাও কিন্তু দুর্নীতি। দুর্নীতি দেশের মানুষের ভেতরে প্রবেশ করেছে। যে অগ্রগতি হয়েছে অর্থনীতির ক্ষেত্রে, দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণে থাকলে জিডিপি আরও বাড়ত। এই দেশে এত দ্রুত অগ্রগতি হচ্ছে, এটাকে বাধাগ্রস্ত করা উচিত নয়। এ সরকার দৃঢ়প্রতিজ্ঞ যে অগ্রগতির ধারা তারা বজায় রাখবে এবং অর্থনৈতিক অগ্রগতির মাধ্যমে তারা দেশের মানুষকে স্থায়িত্ব, দৃঢ়তা ও সুনিশ্চিত আস্থা দিতে চায়। সে জন্যই যুক্তফ্রন্ট সরকারের পাশে দাঁড়িয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘আমরা দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়ব। এটাই যুক্তফ্রন্টের প্রতিজ্ঞা।’

বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমরা সেই দল, যারা একই সঙ্গে গণতন্ত্র ও উন্নয়নে বিশ্বাস করি। যুক্তফ্রন্টের রাজনীতি শান্তি-সুখের রাজনীতি। গণতন্ত্র ও উন্নয়ন দুটোই একসঙ্গে করতে হবে। একাধারে উন্নয়ন, অন্যদিকে গণতন্ত্র—দুইয়ের সপক্ষেই যুক্তফ্রন্ট আছে। উন্নয়ন হবে, গণতন্ত্র থাকবে না; আবার গণতন্ত্র থাকবে, উন্নয়ন হবে না—এটা আমরা বিশ্বাস করি না। দুটোই থাকবে। এটাই আমাদের মূলনীতি। এটা আমাদের শরিকেরা জানে।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন যুক্তফ্রন্টের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মাজহারুল হক শাহ চৌধুরী, সমন্বয়কারী সরদার শামস আল মামুন প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন