'বাংলার বস'-এর মাংস বিলিয়ে দেওয়া হলো গরিবদের

বিজ্ঞাপন
default-image

রাজধানীর গাবতলী পশুর হাটের আলোচিত ‘বাংলার বস’ নামের সেই গরুটিকে কোরবানি করে গোশত গরিব মানুষের মধ্যে বিলিয়ে দেওয়া হয়েছে। আজ সোমবার উপজেলার বেতুয়া গ্রামের মাদ্রাসা মাঠে ওই গরুর মাংস বিলিয়ে দেওয়া হয়। বেলা তিনটায় বেতুয়া ও আশপাশের কয়েকটি গ্রামের প্রায় এক হাজার মানুষকে এ মাংস প্যাকেট করে দেওয়া হয়েছে।

লাবিব গ্রুপের চেয়ারম্যান শিল্পপতি সালাউদ্দিন আলমগীর (সিআইপি) ঈদের দুই দিন আগে রাজধানীর গাবতলী হাট থেকে ১০ লাখ ১০ হাজার টাকায় গরুটি কেনেন।

সোমবার বিকেলে সালাউদ্দিন আলমগীরের খালাতো ভাই ওয়াদুদ হোসেন মুঠোফোনে বলেন, ব্যবসায়িক কারণে সালাউদ্দিন আলমগীর রাজধানীতে বসবাস করলেও তাঁর জন্মস্থান উপজেলার বেতুয়া গ্রামে। তিনি প্রতিবছরই গরু কোরবানি করে গ্রামের গরিব মানুষের মধ্যে মাংস বিলিয়ে দেন। এবার দেশের সবচেয়ে আলোচিত বড় গরুটি তিনি কিনে এর মাংস এলাকায় বিতরণ করেছেন। ‘বাংলার বসকে’ দেখতে উৎসুক জনতার ভিড় এড়াতে তিনি পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত একটি বাড়িতে রেখেছিলেন।

‘বাংলার বস’কে পুষেছিলেন খামারি আসমত আলী গাইন। তাঁর বাড়ি যশোরের মনিরামপুর উপজেলার হুরগতি গ্রামে। গরুটি তিনি ঈদের এক সপ্তাহ আগে গাবতলীর হাটে তোলেন। সেখানে গরুটির ওজন মাপা হয় ১ হাজার ২৯৫ কেজি। এটি দেশের সবচেয়ে বড় গরু বলে দাবি করেছিলেন আসমত গাইন। তিনি গাবতলীর হাটে প্রথমে ওই গরুটির দাম হেঁকেছিলেন ৫০ লাখ টাকা। তবে ক্রেতার অভাবে তিনি ওই গরুটি বিক্রি করতে পারছিলেন না। ঈদের আগে গরুটি নিয়ে গণমাধ্যমেও অনেক আলোচনা-সমালোচনা হয়। অবশেষে তিনি লোকসান দিয়ে ১০ লাখ ১০ হাজার টাকায় সালাউদ্দিন আলমগীরের কাছে গরুটি বিক্রি করেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন