চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে জঙ্গিদের কাছ থেকে উদ্ধার করা বোমার সঙ্গে ঢাকায় র্যা বের সদর দপ্তরের ফোর্সেস ব্যারাকে বিস্ফোরিত বোমার মিল রয়েছে। তবে বোমাগুলো চট্টগ্রাম থেকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে কি না, তা পুরোপুরি নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।
৭ মার্চ চট্টগ্রাম থেকে বোমা নিয়ে ঢাকায় যাওয়ার পথে কুমিল্লার চান্দিনায় ধরা পড়েন দুই জঙ্গি। তাঁদের একজন আহমেদ আজওয়াজ রিমান্ডে পুলিশকে বলেছিলেন, এর আগেও চট্টগ্রাম থেকে দুবার বোমার চালান নিয়ে তাঁরা ঢাকায় যান। জিজ্ঞাসাবাদে তাঁদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পরদিন চট্টগ্রামের মিরসরাই পৌরসভার গোভনিয়া এলাকায় একটি ভাড়া বাসা থেকে ২৯টি বোমা ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করে পুলিশ।
পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলাম গতকাল বলেন, সীতাকুণ্ডের ‘সাধন কুটির’ ও ‘ছায়ানীড়’ নামের দুটি বাড়ি থেকে উদ্ধার হওয়া বোমার সঙ্গে ঢাকায় র্যা ব ফোর্সেস ব্যারাকে হামলার ঘটনায় উদ্ধার হওয়া বোমার মিল রয়েছে। ১৭ মার্চ রাজধানীর আশকোনায় র্যা বের সদর দপ্তরের ফোর্সেস ব্যারাকে আত্মঘাতী হামলা চালাতে গিয়ে অজ্ঞাতনামা হামলাকারী আত্মঘাতী বিস্ফোরণে নিহত হন।
এর আগে ১৫ মার্চ বিকেলে সীতাকুণ্ড পৌর সদরের আমিরাবাদ এলাকার সাধন কুটিরের একটি ফ্ল্যাট থেকে বোমা, অস্ত্র ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নারীসহ দুই জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে আমিরাবাদের এক কিলোমিটার দূরে প্রেমতলা চৌধুরীপাড়ায় ‘ছায়ানীড়’ নামে আরেকটি বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। সেখানে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে পাঁচজন নিহত হন।
এদিকে সীতাকুণ্ডের ছায়ানীড়ে জঙ্গিদের ফ্ল্যাটটির আরেকটি কক্ষ থেকেও গতকাল ১০টি বোমা এবং এক ড্রাম বিস্ফোরক উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ছাড়া জঙ্গিদের ব্যবহৃত একটি ল্যাপটপের ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে। এর আগে গত শনিবার ১৫টি বোমা, পাঁচ ড্রাম হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড (মোট ২০০ লিটার) এবং একটি ড্রামে ৪০ লিটার অ্যাসিড পাওয়া গেছে। চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দল এসব উদ্ধার করে। গত দুই দিনে উদ্ধার করা ২৫টি বোমার মধ্যে শনিবার ৭টি এবং গতকাল ১৮টি বোমা নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে। চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা গতকাল দুপুরে বলেন, ছায়ানীড় থেকে গ্রেপ্তার দুই জঙ্গি জসিম ওরফে জহিরুল এবং তাঁর স্ত্রী আরজিনা ওরফে রাজিয়া সুলতানাকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত আছে। তাঁদের সঙ্গে কুমিল্লার চান্দিনা থেকে গ্রেপ্তার দুজনের যোগাযোগ থাকার তথ্য পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন