বিদেশি নাগরিকদের পার্বত্য চট্টগ্রাম ভ্রমণে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নেওয়া এবং সেখানে আদিবাসীদের সঙ্গে বৈঠক বা সাক্ষাতের সময় প্রশাসন, সেনাবাহিনী, বিজিবির উপস্থিতি নিশ্চিত করার সরকারি সিদ্ধান্তকে পক্ষপাতদুষ্ট ও বৈষম্যমূলক বলে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিকসমাজ ও জনসংহতি সমিতি।
গত শুক্রবার নাগরিকসমাজের পক্ষে গৌতম দেওয়ান ও জনসংহতি সমিতির পক্ষে কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রচার সম্পাদক মঙ্গল কুমার চাকমার স্বাক্ষরে পাঠানো পৃথক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানানো হয়। দুটি বিবৃতিতে এ ধরনের বৈষম্যমূলক ও পার্বত্য চুক্তিপরিপন্থী সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি জানানো হয়।
পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিকসমাজের বিবৃতিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তকে ‘অপরিপক্ব’ উল্লেখ করে বলা হয়, এটি পক্ষপাতদুষ্ট, বৈষম্যমূলক ও বর্ণবাদী সিদ্ধান্ত।
জনসংহতি সমিতির বিবৃতিতে বলা হয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়িদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক হিসেবে বিবেচনা করে, যা উদ্বেগজনক।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কার্যবিবরণীতে পাহাড়ি নেতাদের বিরোধিতার কারণে ২২ বছরেও তিন পার্বত্য জেলা পরিষদে নির্বাচন করা সম্ভব হয়নি বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এ বিষয়ে জনসংহতি সমিতির অভিযোগ, পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নে সরকারের ব্যর্থতার দায় হীন উদ্দেশে আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যানসহ পাহাড়ি নেতাদের ওপর চাপানো হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন