রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় দুই সপ্তাহ ধরে ডায়ারিয়ার প্রকোপ দেখা যাচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, সারা দেশে বছরের প্রথম তিন মাসে (জানুয়ারি থেকে মার্চ) সাড়ে চার লাখের বেশি মানুষ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৫৫ হাজারের বেশি রোগীকে চিকিৎসা দিয়েছে আইসিডিডিআরবির মহাখালী হাসপাতাল।
আইসিডিডিআরবির একটি সূত্র এর আগে প্রথম আলোকে বলেছিল, তাদের হাসপাতালে আসা রোগীদের ২৩ শতাংশ তীব্র ডায়রিয়া বা কলেরায় আক্রান্ত।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, কলেরার রোগীর শরীর থেকে দ্রুত পানি বের হয়ে যায়। চোখ গর্তে চলে যায়। জিব শুকিয়ে যায়। রোগী নিস্তেজ হয়ে পড়ে। ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা চলে যায়। অর্থাৎ চিমটি দিলে ত্বক কুঁচকে থাকে, অল্প সময়ে স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরে না। এসব লক্ষণ দেখা দিলে রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে। পানিশূন্যতার কারণে এসব রোগীর মৃত্যুর ঝুঁকি আছে।

গত তিন মাসের হিসাবে দেখা যায়, ডায়রিয়ায় সবচেয়ে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে ঢাকা বিভাগে। এই বিভাগে আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৫৯ হাজার ২৪৭ জন। সবচেয়ে কম আক্রান্ত হয়েছে বরিশাল বিভাগে। আক্রান্তের সংখ্যা ৫ হাজার ৪১৫। আট বিভাগের হিসাবে দেখা যায়, ময়মনসিংহ ও রংপুর বিভাগে ডায়রিয়ার আক্রান্তের সংখ্যা ফেব্রুয়ারির চেয়ে মার্চ মাসে কমেছে। অন্য সব বিভাগে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন