বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ বুধবার প্রথম আলোকে এই তথ্য নিশ্চিত করেন ওই আদালতের বেঞ্চ সহকারী আবু আবদুল্লাহ।

মামলায় আইনজীবী আলমগীর হোসেন দাবি করেছেন, গত ৩০ এপ্রিল একটি মোটরবাইক কেনার জন্য ইভ্যালিতে ক্রয়াদেশ দেন। ৩ মে টাকা পরিশোধও করেন। তবে ইভ্যালি কর্তৃপক্ষ এখনো তাঁর মোটরসাইকেল দেয়নি।

মামলায় অপর যে আটজনকে আসামি করা হয়েছে, তাঁরা হলেন ইভ্যালির কর্মকর্তা তরিকুল কামরুল, আহমেদ জাহিদ, মেহেদী হাসান, আতিউর রহমান, আরিফুল্লাহ খান, এহসান চৌধুরী, ফিরোজ হোসেন ও সাজ্জাদ আলম।

আদালতসংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, প্রতারণার মাধ্যমে গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে রাসেল ও শামীমার বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত গুলশান থানায় একটি এবং ধানমন্ডি থানায় দুটি মামলা হয়েছে। আর আদালতে মামলা হয়েছে দুটি।

১৬ সেপ্টেম্বর বিকেলে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের স্যার সৈয়দ রোডের বাসা থেকে রাসেল ও তাঁর স্ত্রী শামীমা নাসরিনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। রাসেলকে দুই দফা ও শামীমাকে এক দফা রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। দুজনই এখন কারাগারে আছেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন