রাজধানীর ফার্মগেট থেকে গাবতলী পর্যন্ত ১৫ টাকা ভাড়া। ঈদের দিন হওয়ায় পাঁচ টাকা বেশি নেন লাব্বাইক পরিবহনের একটি বাসের চালকের সহকারী আবু তাহের। তিনি বলেন, ‘ঈদের দিন সবার কাছ থেকেই পাঁচ টাকা করে বেশি নিচ্ছি। পরিবারের সঙ্গে ঈদ না করে কাজ করছি; একটু বেশি তো নেওয়াই লাগে।’

মো. মাজহারুল ও মাসুদ রানা সাভারের হেমায়েতপুর থেকে রাজধানীর টেকনিক্যাল মোড় পর্যন্ত মৌমিতা পরিবহনের একটি বাসে করে আসেন। তাঁরা জানান, জনপ্রতি তাঁদের কাছ থেকে ৫ টাকা করে বেশি নেওয়া হয়েছে। ঈদের দিন পাঁচ টাকা করে বেশি নেওয়ায় তাঁদের অসন্তোষ নেই।

চিড়িয়াখানা রুটে চলাচল করে না এমন বাসকেও ঈদের দিন এই রুটে চলতে দেখা যাচ্ছে। চিড়িয়াখানাগামী বাসে বকশিশ বেশি নেওয়া হচ্ছে বলে যাত্রীদের অভিযোগ।

মো. জিসান নামে এক যাত্রী বলেন, কল্যাণপুর থেকে মিরপুর ১ নম্বর পর্যন্ত ভাড়া নিয়েছে ২০ টাকা। আবার মিরপুর ১ নম্বর থেকে চিড়িয়াখানা পর্যন্ত ভাড়া নিয়েছে ২০ টাকা। মোট ৪০ টাকা ভাড়া লাগল। অথচ সরকারের বেঁধে দেওয়া ভাড়ায় ১০ টাকা নেওয়ার কথা। অসন্তোষ প্রকাশ করে এই কিশোর বলে, ‘আমাদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া নেওয়া হচ্ছে।’

জিসান মিরপুর ১ নম্বর থেকে চিড়িয়াখানা পর্যন্ত আসে রাজধানী পরিবহনের একটি বাসে। সেই বাসের চালকের সহকারী নাম প্রকাশ না করে বলেন, চিড়িয়াখানায় গিয়ে বাস ঘোরানোর জন্য আজকে ৫০০ টাকা করে চাঁদা দিতে হচ্ছে। সে জন্য একটু বাড়তি ভাড়া নিতে হচ্ছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন