বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে গতকাল বুধবার রাত ১১টার দিকে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন নাসির। আজ বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

মুগদা থানার পুলিশের ভাষ্য, নাসিরের নির্দিষ্ট কোনো পেশা নেই। তিনি কখনো শাকসবজি বিক্রি করতেন, কখনো দিনমজুরের কাজ করতেন। গত পবিত্র ঈদুল আজহার সময় তিনি শামীম নামের এক কসাইয়ের সঙ্গে মাংস কাটার কাজ করেন। সেই কাজ করে তিনি মজুরির পুরো টাকা পাননি। গতকাল রাতে শামীমের কাছে টাকা চাইতে মদীনাবাগের বাশার টাওয়ারের পেছনে যান নাসির। কথা-কাটাকাটির জেরে তাঁদের মধ্যে মারামারি লেগে যায়। শামীমের কয়েকজন সহযোগীও এই মারামারিতে অংশ নেন। এ সময় কেউ একজন পেছন দিক থেকে নাসিরকে ছুরিকাঘাত করেন। গুরুতর আহত অবস্থায় নাসিরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আজ ভোরে তিনি মারা যান।

মুগদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রলয় কুমার সাহা প্রথম আলোকে বলেন, পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জেরে নাসির খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় এক ব্যক্তিকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্র জানায়, নাসিরের লাশ কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্ত হবে

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন