default-image

রাজধানীর ভাষানটেক এলাকায় কাগজের কার্টনের মধ্যে এক নারীর লাশ পাওয়া গেছে। তাঁর শরীরে আঘাতের চিহ্ন নেই। তবে মুখে স্কচটেপ লাগানো ছিল।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে ভাষানটেক এলাকার নেভি মার্কেটের উল্টো পাশের ডেন্টাল কলেজের ২ নম্বর গেটের পাশে লাশটি পাওয়া যায় বলে জানায় পুলিশ। পুলিশের ভাষ্য, নারীকে শ্বাস রোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে তারা প্রাথমিকভাবে মনে করছে।

আঙুলের ছাপ ধরে নারীর পরিচয় পেয়েছে পুলিশ। জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী তাঁর নাম নাজমা (৩৪)। গ্রামের বাড়ি ভোলায়। তিনি ঢাকায় পল্লবীর ৩৮ নম্বর ঝিলপাড় বস্তিতে থাকতেন।

বিজ্ঞাপন

ভাষানটেক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, সকালে ডেন্টাল কলেজের ২ নম্বর গেটের পাশে স্কচটেপ দিয়ে লাগানো একটি কার্টন দেখতে পায় স্থানীয় লোকজন। কার্টনের ছেঁড়া অংশ দিয়ে ভেতরে মানুষের লাশ আছে বলে তাঁদের সন্দেহ হয়। বিষয়টি তাঁরা থানায় জানান। সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে যান পুলিশ। পরে তাঁরা কার্টনের ভেতরে লাশ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হন।

আলামত যাতে নষ্ট না হয়, সে জন্য পুলিশ সতর্কতা অবলম্বন করে। তারা ঘটনাস্থলটি ঘিরে রাখে। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ক্রাইম সিন ইউনিটকে খবর দেওয়া হয়। তারা ঘটনাস্থলে এসে যুবতীর আঙুলের ছাপ নিয়ে তাঁর পরিচয় বের করে।

ওসি দেলোয়ার হোসেন বলেন, নাজমার লাশ দেখে পুলিশের মনে হয়েছে, তাঁকে সম্ভবত গতকাল বুধবার রাতে অন্য কোথাও শ্বাস রোধ করে হত্যা করা হয়েছে। পরে তাঁর লাশ কার্টনে ভরে ভাষানটেক এলাকায় ফেলে রেখে গেছে দুর্বৃত্তরা।

কে বা কারা কী কারণে নাজমাকে হত্যা করেছে, তা অনুসন্ধান করে বের করা হবে বলে জানান দেলোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, নাজমার আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চলছে। ময়নাতদন্তের জন্য তাঁর লাশ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হবে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন