বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ডিএমপির এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘সার্জেন্ট মহুয়া আমাদেরই একজন সদস্য। তবে যেহেতু মামলা হয়েছে, তাই সাধারণ মানুষ যেভাবে বিচার পান, তাঁর বিষয়টি সেভাবে দেখা হবে। তাঁর মামলার বিষয়ে গুলশান বিভাগ কাজ করেছে।’

২ ডিসেম্বর রাজধানীর বনানী এলাকার চেয়ারম্যানবাড়ি সড়কে দ্রুতগতির একটি বিএমডব্লিউ গাড়ির চাপায় আহত হন মনোরঞ্জন হাজং। পরে তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে (পঙ্গু হাসপাতাল) নেওয়া হয়। গুরুতর অবস্থার কারণে অস্ত্রোপচার করে তাঁর ডান পা কেটে ফেলতে হয়েছে। এরপর তাঁকে শাহবাগে বারডেম হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

আহত মনোরঞ্জন হাজং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) অবসরপ্রাপ্ত হাবিলদার। তাঁর মেয়ে মহুয়া হাজং ট্রাফিক সার্জেন্ট হিসেবে ডিএমপিতে কর্মরত। দুর্ঘটনার পর ১১ ডিসেম্বর তিনি থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ নেয়নি। এমনকি ঘটনার পর পথচারীরা চাপা দেওয়া সেই বিএমডব্লিউ গাড়ি, এর চালকসহ অন্য যাত্রীদের আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দিলেও তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন