বাংলা বিভাগের একাডেমিক কমিটির ২৯ মার্চের জরুরি সভার সিদ্ধান্তগুলো ছিল: সব একাডেমিক কার্যক্রম (সব ধরনের ক্লাস নেওয়া, পরীক্ষায় প্রত্যক্ষণ, উত্তরপত্র মূল্যায়ন, এমফিল-পিএইচডি গবেষণা তত্ত্বাবধান, পরীক্ষা কমিটির কাজে অংশগ্রহণ প্রভৃতি) থেকে বিশ্বজিৎ ঘোষকে অব্যাহতি দেওয়া, ভবিষ্যতে তাঁকে কোনো একাডেমিক কার্যক্রমে যুক্ত না করা, সিঅ্যান্ডডি ও একাডেমিক কমিটির সভায় তাঁকে না ডাকা, বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনে তাঁর নামে বরাদ্দ থাকা বিভাগীয় কক্ষ বাতিল, আরও বৃহত্তর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে উপস্থাপন করা হবে কি না, অভিযোগকারীর মতামত সাপেক্ষে সে সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং তদন্তের সময়ও একাডেমিক কমিটির এসব সিদ্ধান্ত বহাল রাখা।

বিভাগের ১৮ এপ্রিলের জরুরি সভার কার্যবিবরণীতে বলা হয়, বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান সৈয়দ আজিজুল হক প্রথমে ২৯ মার্চের পরবর্তী ঘটনাবলির সংক্ষিপ্ত বিবরণ উপস্থাপন করেন। চেয়ারম্যান বলেন, ‘ওই সভা এবং ৩০ মার্চ অনুষ্ঠিত বিভাগের সমন্বয় ও উন্নয়ন কমিটির সভার সিদ্ধান্ত বিশ্বজিৎ ঘোষকে জানানো হলে তিনি সংশ্লিষ্ট সেমিস্টারের মিডটার্মের উত্তরপত্র ও বিভাগীয় কক্ষের চাবি যথাসময়ে বিভাগের কাছে হস্তান্তর করেন। সিদ্ধান্তটি সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীকেও জানানো হয়। তবে বিশ্বজিৎ ঘোষ ওই শিক্ষার্থীর কাছে ব্যক্তিগতভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করে তাঁর কাছ থেকে অভিযোগ প্রত্যাহার করার উদ্যোগ নেন বলে জানা যায়। কয়েক দিন পর ২৯ মার্চের একাডেমিক কমিটির সিদ্ধান্ত পত্রিকায় প্রকাশিত হয়ে পড়ে, যা ছিল অনাকাঙ্ক্ষিত ও অনভিপ্রেত।

অন্যদিকে বিশ্বজিৎ ঘোষ পত্রিকায় নিজেকে নির্দোষ বলা ছাড়াও যেসব উক্তি করেন, তা-ও ছিল অনাকাঙ্ক্ষিত ও দুঃখজনক। বিগত একাডেমিক কমিটির সভায় এবং আমাদের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে তিনি দোষ স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনা করলেও পত্রিকায় ভিন্ন ভিন্ন কথা বলেন।’

কার্যবিবরণীতে বলা হয়, বিশ্বজিৎ ঘোষ ১৬ এপ্রিল বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যানের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করে ঘটনার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং তাঁকে রক্ষা করার লক্ষ্যে তিনটি প্রস্তাব করেন। অভিযোগকারী শিক্ষার্থীর চিঠিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে না পাঠানোর অনুরোধ করেন, শিক্ষার্থীর কাছে ক্ষমা প্রার্থনার প্রস্তাব করেন এবং শেষে স্বেচ্ছায় অবসরে যাওয়ার আগ্রহ জানান।

চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ ঘোষকে তাঁর বক্তব্য লিখিতভাবে জানাতে বললে ১৭ এপ্রিল নিজের হস্তাক্ষরে স্বাক্ষরসহ তিনটি চিঠি পাঠান। প্রথম চিঠিটি চেয়ারম্যানের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে, দ্বিতীয়টি অভিযোগকারী শিক্ষার্থীর প্রতি ক্ষমা প্রার্থনা করে এবং তৃতীয়টি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে উপাচার্য বরাবর স্বেচ্ছা অবসরের আবেদন করে লেখা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে একাডেমিক কমিটির জরুরি সভা ডাকা হয়। বিভাগের চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ ঘোষের পাঠানো তিনটি চিঠি একাডেমিক কমিটির সদস্যদের সামনে পড়ে শোনান। কমিটির সদস্যরা এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

পত্রিকায় প্রকাশিত বিশ্বজিৎ ঘোষের মন্তব্য নিয়ে তাঁরা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। কারণ, বিভাগের শিক্ষকদের কাছে দেওয়া তাঁর বক্তব্য ও পত্রিকায় দেওয়া বক্তব্য ছিল পরস্পরবিরোধী ও সাংঘর্ষিক।

কার্যবিবরণীতে আরও বলা হয়, একাডেমিক কমিটির সদস্যরা সর্বসম্মতিক্রমে মনে করেন, বিভাগের চেয়ারম্যানের কাছে দেওয়া বিশ্বজিৎ ঘোষের দুঃখপ্রকাশ ও ক্ষমা প্রার্থনার চিঠির মাধ্যমে তিনি শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়নের ঘটনার দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন। এ ছাড়া শিক্ষার্থীর কাছে লিখিত চিঠিতে দুঃখপ্রকাশ ও ক্ষমা প্রার্থনার মধ্য দিয়ে তিনি এ-ও স্বীকার করে নিয়েছেন, শিক্ষার্থীর সঙ্গে তাঁর আচরণ শিক্ষকসুলভ হয়নি। এ পর্যায়ে বিভাগের চেয়ারম্যান জানান, ২৯ মার্চের সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীর অভিযোগ ও বিচার প্রার্থনার চিঠিটি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে কি না, বিভাগের ছাত্র উপদেষ্টা হোসনে আরা ও সিরাজুল ইসলামের উপস্থিতিতে সে ব্যাপারে মত নেওয়া হলে ওই শিক্ষার্থী জানান, বিভাগ যেসব ব্যবস্থা নিয়েছে, তাতে তিনি সন্তুষ্ট ও ভয়মুক্ত। এরপর তিনি তাঁর অভিযোগপত্রটি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠাতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন। শিক্ষার্থীর এ অভিমতের পরিপ্রেক্ষিতে একাডেমিক কমিটি সর্বসম্মতভাবে ওই চিঠি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে না পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়। তবে ২৯ মার্চের সভায় হওয়া অন্য সিদ্ধান্তগুলো বলবৎ থাকবে। বিশ্বজিৎ ঘোষের স্বেচ্ছায় অবসর নেওয়ার চিঠির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার একাডেমিক কমিটির নয়।

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হলে বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান সৈয়দ আজিজুল হক গতকাল রোববার সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে চাই না।’

বিশ্বজিৎ ঘোষের মুঠোফোনে একাধিক কল করেও সাড়া পাওয়া যায়নি।
বিশ্বজিৎ ঘোষ ২০১৭ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত সিরাজগঞ্জের রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করেছেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন