default-image

পুরোনো স্বৈরাচারেরা ‘বর্তমান স্বৈরাচারদের’ সঙ্গে মিলে ‘মহাস্বৈরাচারে’ পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে’ গণতন্ত্রকামী ও মুক্তিকামী জনতাকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন৷

শহীদ নূর হোসেন দিবস উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার সকালে গুলিস্তান জিরো পয়েন্টে শহীদ নূর হোসেন চত্বরে নুরুলের সংগঠন ছাত্র, যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদ যৌথভাবে শ্রদ্ধা নিবেদন করে৷ শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এক সংক্ষিপ্ত বিক্ষোভ কর্মসূচিতে নুরুল জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান৷

বিজ্ঞাপন

ডাকসুর সাবেক ভিপি ও ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক বলেন, ‘নূর হোসেনের শহীদ হওয়ার মধ্য দিয়েই তৎকালীন স্বৈরশাসক এরশাদের পতনের আন্দোলন বেগবান হয়েছিল৷ আজ রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে অন্যতম একটি রাজনৈতিক দল ছিল৷ কিন্তু আমরা খুবই লজ্জিত যে সেই আওয়ামী লীগে ভর করেই সেই স্বৈরাচারেরা আজকে জাতীয় সংসদের বিরোধী দল৷’
জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে নুরুল বলেন, আজকে গণতন্ত্রকামী ও মুক্তিকামী জনতাকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে৷ যেহেতু পুরোনো স্বৈরাচারেরা বর্তমান স্বৈরাচারদের সঙ্গে মিলে একটা মহাস্বৈরাচারে পরিণত হয়েছে, সুতরাং গণতন্ত্রকামী জনতা যদি ঐক্যবদ্ধ লড়াই-সংগ্রাম গড়ে তুলতে না পারে, তাহলে সেই স্বৈরাচারদেরই বিজয় হবে৷

আজ ১০ নভেম্বর, শহীদ নূর হোসেন দিবস। বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন-সংগ্রামের এক অবিস্মরণীয় দিন। ১৯৮৭ সালের এই দিনে স্বৈরাচার এরশাদবিরোধী আন্দোলনে বুকে-পিঠে ‘স্বৈরাচার নিপাত যাক, গণতন্ত্র মুক্তি পাক’ লেখা স্লোগান নিয়ে মিছিলে অংশ নিয়েছিলেন নূর হোসেন। মিছিলটি রাজধানীর জিরো পয়েন্ট (বর্তমান শহীদ নূর হোসেন চত্বর) এলাকায় পৌঁছালে পুলিশ গুলি চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে নূর হোসেন শহীদ হন।

ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের শ্রদ্ধা

শহীদ নূর হোসেন দিবসে ‘শহীদ নূর হোসেন চত্বরে’ স্মৃতিস্তম্ভে আজ সকালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে ছাত্রলীগ ও ছাত্রদল৷ দুই সংগঠনেরই কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের নেতারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন৷

মন্তব্য পড়ুন 0