বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর আগে গত মঙ্গলবার গাজীপুরের ওই মাদকাসক্তি পুনর্বাসন কেন্দ্রে অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযান শেষে র‌্যাব জানায়, কেন্দ্রে যারা চিকিৎসা নিতে এসেছে তাঁদের শারীরিক, মানসিক নির্যাতন এবং যৌন হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। মাদকাসক্ত নয় এমন সুস্থ ব্যক্তিদেরও জোর করে সেখানে রাখা হয়েছে। অভিযানের সময় কেন্দ্র থেকে ৪২০টি ইয়াবা জব্দ করা হয়।

মানববন্ধনে মুঠোফোনে যুক্ত হয়ে এইড ফর মেন ফাউন্ডেশনের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক খান বলেন, ধর্ষণের আন্তর্জাতিক ও সর্বজনীন ধারণা ও সংজ্ঞা অনুযায়ী, একজন ব্যক্তি অপর একজন ব্যক্তির সঙ্গে জোরপূর্বক যৌন সম্পর্ক স্থাপন করলে তাকে ধর্ষণ বলে। মাদকাসক্তি পুনর্বাসন কেন্দ্রের মালিক সেই কাজটিই করেছেন। তিনি মাদকাসক্ত কিশোর ও পুরুষদের শারীরিক নির্যাতন করে তাদের সঙ্গে জোর করে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছেন। সুতরাং তিনি একজন ধর্ষক এবং ধর্ষণের শাস্তিই তার প্রাপ্য।

বাংলাদেশকে মানবাধিকার রক্ষায় বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যেতে হবে এবং দেশীয় আইনে ধর্ষণের লিঙ্গনিরপেক্ষ সংজ্ঞায়ন করে ওই মাদকাসক্তি পুনর্বাসন কেন্দ্রের মালিককে শাস্তির আওতায় আনতে হবে বলে মন্তব্য করেন আব্দুর রাজ্জাক খান।

এইড ফর মেন ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম মানববন্ধনে বলেন, মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের ঘটনা দেখিয়ে দেয় নারীও ধর্ষণ করতে পারে এবং পুরুষও নারীর দ্বারা ধর্ষিত হতে পারে। সময় এসেছে এই চরম সামাজিক অবক্ষয়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার। আইনে ধর্ষণের লিঙ্গনিরপেক্ষ সংজ্ঞায়ন এবং দণ্ডবিধির ৩৭৫ ধারার লিঙ্গনিরপেক্ষ সংস্কার করতে হবে।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন এইড ফর মেন ফাউন্ডেশনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আহ্বায়ক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের ছাত্র মাহিন মুর্তজা। তিনি বলেন, একাধিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদন বলছে, গাজীপুরের ভাওয়াল মাদকাসক্তি পুনর্বাসন কেন্দ্রে আশ্রিত অপ্রাপ্তবয়স্ক কিশোরদের ওপর পাশবিক যৌন নির্যাতন করেছেন প্রতিষ্ঠানটির মালিক।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন