বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গাজীপুর ও সাভারের সড়কে যানজট–ভোগান্তি ছাড়াও এই সভায় করোনার সময়ে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা করা প্রণোদনা প্যাকেজের ব্যবহার, দেশে করোনার টিকার ব্যবস্থাপনাসহ নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

সভায় দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সভাপতি জসীম উদ্দিন বলেন, ‘ব্যাংকগুলো ছোট ব্যবসায়ীদের সঙ্গে নেই। তারা বড় বড় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কাজ করতে চায়। এই কারণে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা করা প্রণোদনা প্যাকেজের টাকা এখনও পুরোপুরি ছাড় করা সম্ভব হয়নি।’

দেশে নতুন করে কাউকে করের আওতায় আনা হচ্ছে না বলে এ সময় অভিযোগ করেন জসীম উদ্দিন। এই বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সরকার নীতিমালা করে ঠিকই, কিন্তু তা করার সময় ব্যবসায়ীদের ডাকা হয় না। নিজেরাই নীতিমালা তৈরি করে আমাদের বলে, এটা বাস্তবায়ন করো। যেটা আমি বাস্তবায়ন করব, সেখানে আমাকে না নিলে তো সেটা বাস্তবায়ন হবে না।’

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং দলটির শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক কেন্দ্রীয় উপকমিটির চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘পদ্মা সেতু হয়ে গেলে দেশে বিপ্লব সৃষ্টি হবে। আমরা বিএনপি, এরশাদের মতো শাসক এনে আবার ভুল করব না।’

আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য সচিব সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘সরকারিভাবে আমাদের অনেক কিছু মোকাবিলা করতে হয়। ব্যবসা করতে গিয়ে ব্যবসায়ীদের অনেক হয়রানির শিকার হতে হয়। আমরা কোনোভাবেই বাধাগ্রস্ত হতে চাই না।’

এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি এবং ডি–৮ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম বলেন, ‘বিভিন্ন দেশে বড় বড় করদাতাদের করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে যারা কর দেন না, তাঁদেরও টিকা দেওয়া হয়েছে।’

এই সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন ও বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন