default-image

ক্রেতা ও বিক্রেতারা জানান, সকাল থেকে হাটে ক্রেতা অনেক কম। ব্যবসায়ীরা বলছেন, যাঁরা আসছেন, তাঁদের অধিকাংশ দাম যাচাই করছেন। গরুর খামারিদের যে পরিমাণ খরচ হয়েছে, দাম আশানুরূপ বাড়েনি।

ক্রেতারা বলছেন, গতবারের চেয়ে দাম সামান্য বেশি।

পুরান ঢাকা থেকে আসা ক্রেতা আমিনুল ইসলাম বলেন, তিনি সকাল থেকে এখন পর্যন্ত তিনটি বাজার ঘুরেছেন। সকালে তিনি ধোলাইখাল এবং দুপিরে কচুক্ষেতে গিয়েছিলেন। তিনি দুটি মাঝারি মানের গরু কিনবেন।

তাঁর ভাষ্য, অন্য দুই বাজারের তুলনায় গাবতলীতে দাম সামান্য কম মনে হচ্ছে। তবে গতবারের তুলনায় দাম বেড়েছে। গত বছর তিনি ৯০ হাজার এবং ৮৫ হাজার টাকায় দুটি গরু নিয়েছিলেন। এবার তাঁকে হয়তো একই মানের গরু কিনতে এক লাখ টাকা করে খরচ করতে হতে পারে।

বিক্রেতারা আশা করছেন, দুপুরের পর ক্রেতা বাড়বে। তবে এখন অধিকাংশ ব্যাপারী অলস সময় কাটাচ্ছেন।

গরু ব্যবসায়ী নুরুল আমিন নেত্রকোনার কেন্দুয়া থেকে ছয়টি গরু নিয়ে হাটে এসেছেন গত সোমবার। ওজন সাড়ে চার থেকে ছয় মণের মধ্যে। দুটি গরু বিক্রি করেছেন এক লাখ পাঁচ হাজার এবং এক লাখ টাকায়। তিনি বলেন, ‘আশা ছিল দাম আরও একটু ভালো পাব। কিন্তু ক্রেতারা খুবই কম দাম বলছেন। তা ছাড়া ক্রেতাও কম।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন