বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

খ্রিষ্টান ধর্মের প্রবর্তক যিশুখ্রিষ্ট জন্ম নিয়েছিলেন এদিন। খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, মানবজাতিকে সত্য ও ন্যায়ের পথে পরিচালনা করতে ও ঈশ্বরের মহিমা প্রচারে যিশু পৃথিবীতে জন্ম নিয়েছিলেন। তাঁর জন্ম উপলক্ষে সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশের খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীরাও ধর্মীয় আচার, প্রার্থনা ও আনন্দ-উৎসবে দিনটি উদ্‌যাপন করে।

গত বছর বৈশ্বিক করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে উৎসব উদ্‌যাপন হয়েছিল অনেকটা অনাড়ম্বরভাবে। তবে এবার বড়দিনের আয়োজনে চাকচিক্য কিছুটা বেড়েছে। যদিও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান পালনের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মানার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতারা।

এদিকে সকালে মোহাম্মদপুর গির্জা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, গির্জার ভেতরে ও বাইরে নানা রঙের বেলুন, নকশা করা ককশিট, রঙিন কাগজ, জরি ও ফুল দিয়ে সাজানো হয়েছে। বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে কৃত্রিম ‘ক্রিসমাস ট্রি’। গির্জা প্রাঙ্গণে থাকা গাছে ঝোলানো হয়েছে রংবেরঙের বাতি।

বড়দিন আগামীকাল হলেও উৎসব উদ্‌যাপনের শুরু হবে আজ সন্ধ্যায় প্রার্থনা অনুষ্ঠানের পর থেকেই। তেজগাঁও গির্জায় অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় দুদিনই (শুক্রবার ও শনিবার) প্রার্থনার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে দুই ধাপে। প্রথম দিন সন্ধ্যা ৭টা ও রাত ১০ টা এবং বড়দিনের দিন (শনিবার) সকাল ৭ ও ৯টা। মোহাম্মদপুর গির্জায় আজকের প্রার্থনার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে রাত ৯টায়।

এবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা থাকায় ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানের বাইরে লোকসমাগম হয়, এমন উৎসব উদ্‌যাপনে খ্রিষ্টভক্তদের নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। বড়দিন উপলক্ষে গির্জার বাইরে কোনো আনুষ্ঠানিকতা রাখা হচ্ছে না।

তেজগাঁও পবিত্র জপমালা রানীর গির্জার পালক পুরোহিত ফাদার সুব্রত বনিফাস গোমেজ প্রথম আলোকে বলেন, ‘পাপ স্বীকার সংস্কারের মাধ্যমে খ্রিষ্টানরা বড়দিনের আধ্যাত্মিক প্রস্তুতি নেয়। আমরা যেসব অন্যায়-অপরাধ করি, সেগুলো যাজকের কাছে গিয়ে স্বীকার করি এবং ঈশ্বরের ক্ষমা লাভ করি।’

default-image

গতকাল বাংলাদেশের ক্যাথলিক খ্রিষ্টানদের ধর্মগুরু আর্চবিশপ বিজয় এন ডি’ক্রুজ ওএমআই বড়দিন উপলক্ষে সবাইকে ভ্রাতৃত্ব, একতা ও সম্প্রীতি স্থাপনের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা যাতে ধর্মের ঊর্ধ্বে গিয়ে সবার মধ্যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন সৃষ্টি করি। কারণ, পৃথিবীতে পরিবার একটাই, সেটা মানবপরিবার। একটি পরিবার গড়ে তুললে এ পৃথিবী অনেক সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ হবে।’ তিনি বলেন, যিশুখ্রিষ্ট একে অপরকে ভালোবাসা ও ক্ষমার শিক্ষা দিয়েছেন।

অন্যদিকে বড়দিনকে ঘিরে রাজধানীর বিভিন্ন পাঁচ তারকা হোটেলগুলোও সাজানো হয়েছে। রঙিন আলোকসজ্জায় ‘ক্রিসমাস ট্রি’ সাজানোর পাশাপাশি ব্যবহার করা হয়েছে রংবেরঙের আলোকসজ্জা। আজ সকালে রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে গিয়ে দেখা যায়, উৎসব উদ্‌যাপনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। হোটেলের লবিতে ও ক্যাফে বাজার রেস্তোরাঁয় ক্রিসমাস ট্রি হাউস ও সান্টা ক্লজ বিভিন্ন আলোকসজ্জার মাধ্যমে সুসজ্জিত করা হয়েছে।

প্যান প্যাসিফিকের পাবলিক রিলেশন ম্যানেজার মোহাম্মদ নাফিউজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, সান্টা ক্লজ ও তাঁর বন্ধুরা হোটেলে আসা শিশুদের চমকপ্রদ উপহার দিয়ে বরণ করবেন। বড়দিন উপলক্ষে হোটেলের সুইমিং পুলরে পাশে ওয়েসিস গার্ডেনে বাচ্চাদের বিনোদনে ‘কিডস কার্নিভ্যাল’ মেলার আয়োজন করা হয়েছে। সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বিভিন্ন মজাদার গেম, রাইড, জাদুর খেলা ও পাপেট শোর আয়োজন করা হয়েছে।

মোহাম্মদ নাফিউজ্জামান বলেন, তবে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় হোটেলে আগত সবাইকে মাস্ক পরিধান করতে হবে। প্রবেশের আগে সবার তাপমাত্রা পরীক্ষা করে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে অতিথিদের প্রবেশ নিশ্চিত করা হবে বলেও তিনি জানান।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন