default-image

রাজধানীর উত্তরা পূর্ব থানার কাছে বৃহস্পতিবার রাতে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে একটি মাইক্রোবাস থামিয়ে ছিনতাই করার সময় পাঁচজনকে গণপিটুনি দিয়েছেন জনতা। পরে তাঁদের পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।

গণপিটুনির শিকার ব্যক্তিরা হলেন সাখাওয়াত হোসেন ওরফে সাগর (৩০), ফারুক আহমেদ (৪৫), মো. অজিউল্লাহ (৩১), মো. বিপ্লব (৩০) ও ঝর্ণা আক্তার (৩০)।

বিজ্ঞাপন

পুলিশের উত্তরা বিভাগ সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শাহজালাল বিমানবন্দরের কাছে উত্তরা পূর্ব থানাসংলগ্ন প্রধান সড়কে সাত ব্যক্তি নিজেদের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে একটি মাইক্রোবাস থামান। তাঁরা বলেন, তাঁদের কাছে তথ্য রয়েছে—গাড়িতে চোরাই মালামাল আছে। টাকা না দিলে তাঁরা ছবি তুলে তাঁদের পত্রিকা ও টিভি চ্যানেলে তা প্রকাশ করবেন। গাড়িতে থাকা লোকজন টাকা দিতে অস্বীকার করায় মাইক্রোবাসের যাত্রীদের কাছ থেকে টাকা ছিনিয়ে নিচ্ছিলেন তাঁরা। এ সময় যাত্রীরা চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে ওই পাঁচজনকে আটক করেন। পালিয়ে যান সুমি চৌধুরী ও মো. ইফতেখার। উপস্থিত লোকজন আটক পাঁচজনকে গণপিটুনি দেন। পরে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন।

পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপকমিশনার মো. শহিদুল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, উত্তরার দোকানিরা এই কথিত সাংবাদিকদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ। তাঁরা প্রত্যেক দোকানে গিয়ে বলেন যে ভেজাল মালামাল বিক্রি করা হচ্ছে। টাকা না দিলে ভিডিও ও ছবি তুলে পত্রিকায় প্রকাশ করা হবে। এভাবে দোকানিদের জিম্মি করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিলেন।

একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, পিকআপ আটকে মাছ বিক্রেতাদের কাছ থেকে তাঁরা মাছসহ এক লাখ থেকে বিভিন্ন অঙ্কের চাঁদা দাবি করছেন।

উপকমিশনার মো. শহিদুল্লাহ আরও বলেন, আটক পাঁচজনের বিরুদ্ধে উত্তরা পূর্ব থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা হয়েছে। পালিয়ে যাওয়া দুজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এঁদের সবার বাসা দক্ষিণখান, উত্তরখান ও টঙ্গীর এরশাদনগর এলাকায়।

বিজ্ঞাপন
রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন