জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে সংশ্লিষ্ট কেউ নির্ধারিত ফির অতিরিক্ত টাকা নিলে কিংবা টাকার জন্য হয়রানি করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী। বলেন, জন্মনিবন্ধন প্রাপ্তিতে যেকোনো স্তরে জনগণকে কোনো ধরনের হয়রানি করা হলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের কোনো সুযোগ নেই। যদি কেউ এ ধরনের কাজে যুক্ত থাকে, প্রমাণিত হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন, জন্মনিবন্ধন হলো একজন মানুষের মূল ভিত্তি। জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন ব্যবস্থাকে সহজ করার কোনো বিকল্প নেই। এ ক্ষেত্রে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্যরা জন্ম তারিখ, পিতা-মাতার নামসহ অন্যান্য তথ্য সংগ্রহ করে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন। ইউপি চেয়ারম্যানরা মাসিক সভায় এ-সংক্রান্ত বিশদ আলোচনা করে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে পারেন।

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের সার্ভার জটিলতা প্রসঙ্গে তাজুল ইসলাম বলেন, সার্ভার নতুনভাবে ইনস্টল (স্থাপন) করার কারণে কিছুদিন সিস্টেম শাটডাউন (ব্যবস্থা অকার্যকর) ছিল। এখন চালু হয়েছে। সার্ভারে যদি সমস্যা থাকে তাহলে দ্রুত সমাধান করতে হবে।

সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল ইসলাম, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যালয়ের মহাপরিচালক পলাশ কান্তি বালা এবং দেশের সব সিটি করপোরেশনের প্রতিনিধি, উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।