বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শিক্ষার্থী ওয়াসেদ আলী বলেন, ‘গতকাল শুক্রবার রাতে ঢাকায় এসে পুরান ঢাকায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী খালাতো ভাইয়ের বাসায় উঠেছিলাম। ভেবেছিলাম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফিরব। কিন্তু পরীক্ষা হঠাৎ স্থগিত হওয়ায় এখন বাড়ি ফেরা খুব জরুরি। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় কীভাবে বাড়ি ফিরব, তা নিয়ে ভীষণ চিন্তিত। বাড়িতে জরুরি কাজ আছে।’

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে গণপরিবহন বন্ধের দ্বিতীয় দিনে আজ গণপরিবহন বন্ধ থাকায় পুরান ঢাকায় ওয়াসেদ আলীর মতো এমন অনেক শিক্ষার্থীকে বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে। কোনোভাবে ঢাকায় এলেও, এখন তাঁদের বাড়ি ফিরতে ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে।

আজ শনিবার সকাল থেকে পুরান ঢাকার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বাসস্ট্যান্ড ও রাজধানীর কেন্দ্রীয় সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এলাকায় ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বাসস্ট্যান্ড থেকে দুপুর পর্যন্ত কোনো গণপরিবহন চলতে দেখা যায়নি। কর্মক্ষেত্রে যাওয়ার জন্য রিকশা ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার ওপর ভরসা করতে হচ্ছে। অনেকেই রাইড শেয়ারিং সেবা নেন। তবে এসব যানবাহনের সংখ্যাও অপ্রতুল। তবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বাসস্ট্যান্ড থেকে যাত্রাবাড়ি পর্যন্ত স্থানীয় লেগুনা চলতে দেখা গেছে। প্রায় প্রতিটি প্রধান সড়কসহ গলিতেও রিকশা ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা দেখা গেছে।

সকাল ১০টায় সরকারি সাত কলেজে ভর্তি পরীক্ষা থাকায় শিক্ষার্থীদের রাজধানীর নানা প্রান্ত থেকে রিকশা ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা বদলে বদলে পুরান ঢাকায় আসতে হয়। পুরান ঢাকার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় তিনটি কলেজ কেন্দ্রে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয়।

কবি নজরুল সরকারি কলেজে ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসা এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক শামসুর রহমান বলেন, শ্যামলী থেকে রিকশায় আসতে হয়েছে। গণপরিবহন ধর্মঘট ঢাকায় সকাল সাতটার সময় বেরিয়েছি। অটোরিকশা পেতে এক ঘণ্টার বেশি সময় সড়কে অপেক্ষা করেও কেউ আসতে চায়নি। পরে ৩০০ টাকা বেশি দিয়ে পুরান ঢাকায় আসতে রাজি হয় একজন চালক। এখন ঘরে ফিরব কীভাবে বুঝতে পারছি না।

এদিকে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে যাত্রীদের আসতে অনেক হয়রানি ও ভোগান্তিতে পড়তে হয়। সাধারণ ভাড়া থেকে অন্তত দুই থেকে তিন গুণ বেশি ভাড়া দিতে হচ্ছে বলে অভিযোগ যাত্রীদের।

গত বুধবার মধ্যরাত থেকে ডিজেলের মূল্য লিটারপ্রতি ১৫ টাকা বাড়িয়েছে সরকার। পরিবহন সূত্রগুলো বলছে, জ্বালানি তেলের নতুন মূল্যহার কার্যকর হওয়ার পর পরিবহন খাতের বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেন। এসব বৈঠক থেকে সরকারিভাবে ভাড়া বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়ার আগপর্যন্ত পরিবহন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

তবে বেশির ভাগ সংগঠনের নেতারা সরকারপন্থী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। তাই তাঁরা আনুষ্ঠানিকভাবে ধর্মঘট ঘোষণা করতে চান না। অনানুষ্ঠানিকভাবে বাস, ট্রাকসহ বাণিজ্যিক যানবাহন না চালানোর সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। সরকারিভাবে ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে গতকাল সকাল ছয়টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সারা দেশে গণপরিবহন ও পণ্যবাহী যানবাহন বন্ধ থাকবে বলে এই খাতের মালিক-শ্রমিকেরা জানিয়েছেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন