বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কারওয়ান বাজারে একজন মোটরসাইকেল রাইডারের সঙ্গে দেখা। অ্যাপসভিত্তিক মোটরসাইকেল সেবা বন্ধ থাকায় অ্যাপস ছাড়াই মোটরসাইকেল চালাতে বের হয়েছেন তিনি। যাত্রীর জন্য দাঁড়িয়ে থাকা এই চালক প্রথম আলোকে বলেন, ‘লকডাউনের অনেক দিন হয়ে গেছে। আর সহ্য হচ্ছে না। ঘরে বসে থাকলে খাবার খরচ কে জোগাবে?’

ফার্মগেট মোড়ে শফিকুল আলম নামের একজনকে রিকশার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। তিনি বলেন, ‘যাত্রাবাড়ীতে যেতে হবে। গার্মেন্টসের কাজ আছে। কোম্পানি থেকে কোনো গাড়ি দেয়নি। রিকশার ভাড়া দিতে দিতে কুলাচ্ছে না। মিরপুর থেকে প্রতিদিনই যেতে হচ্ছে কোনো না কোনো জায়গায়।’

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু হঠাৎ উর্ধ্বমুখী হওয়ার কারণে প্রথম দফায় ৫ এপ্রিল সাত দিনের লকডাউন দেওয়া হয়। ঢিলেঢালাভাবে পালিত সেই লকডাউনের মধ্যেই ১৪ এপ্রিল থেকে আবার সারা দেশে সর্বাত্মক লকডাউন দেওয়া হয়। গতকাল শেষ হওয়া সেই সর্বাত্মক লকডাউন আবার বর্ধিত করা হয় আরও এক সপ্তাহের জন্য। এর মধ্যেই বর্ধিত লকডাউনের প্রথম দিনে ঢাকার রাস্তা গত এক সপ্তাহের তুলনায় কিছুটা বেশি ব্যস্ত দেখা গেছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন