বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দক্ষিণে গরুর পাশাপাশি ছাগলসহ অন্য আরও আড়াই থেকে তিন লাখ পশু কোরবানি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

দক্ষিণ সিটির জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবু নাছের জানান, ডিএসসিসির আওতাধীন এলাকা ও পশুর হাটগুলোর বর্জ্য ব্যবস্থাপনা মাঠপর্যায়ে তদারকের জন্য ১০টি দল গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া একটি নিয়ন্ত্রণকক্ষ স্থাপন করা হয়েছে। পশুর হাটের বর্জ্য ও ঈদের দিন আজ বুধবার বেলা দুইটা থেকে ২৪ জুলাই বেলা দুইটা পর্যন্ত দক্ষিণ সিটির আওতাধীন এলাকা ও পশুর হাটগুলোর বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় মাঠপর্যায়ে তদারকের জন্য এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সমন্বয়ে এই টিমগুলো গঠন করা হয়েছে।

ডিএনসিসির উপপ্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মো. মফিজুর রহমান ভুঁইয়া দুপুর পৌনে ১২টায় প্রথম আলোকে বলেন, বর্জ্য সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন এলাকায় ডাম্প ট্রাক, পিকআপ ও অন্যান্য পরিবহন পাঠানোর কার্যক্রম চলছে। বেলা দুইটায় ভাটারা সাইননগর অস্থায়ী কোরবানির পশুর হাট থেকে মেয়র আতিকুল ইসলাম উত্তর সিটি এলাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন। তবে মাঠপর্যায়ে ভ্যান সার্ভিসের পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা কোরবানির বর্জ্য অপসারণ করা শুরু করে দিয়েছেন। উত্তর সিটিতে প্রায় তিন লাখ গরু কোরবানি হবে বলে ধরে নিয়ে পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচির পরিকল্পনা করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

ডিএনসিসির ১১ হাজার ৫০৮ ও ডিএসসিসির প্রায় ১০ হাজার কর্মী ঈদের দিন থেকে বর্জ্য অপসারণে নিয়োজিত থাকবেন।
এ ছাড়া দক্ষিণ সিটিতে ৯০টি খোলা ট্রাক, ৫৩টি কম্পেক্টর, ১২টি পানির গাড়ি, ১০২টি ডাম্প ট্রাক, ১৪টি পে-লোডার, ৮১টি কন্টেইনার ক্যারিয়ার, ৯টি টায়ার ডোজার, ২টি ট্রেইলার, ৯টি স্কিড লোডারসহ প্রায় পৌনে ৪০০ যান-যন্ত্রপাতি মাঠপর্যায়ে বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রমে নিযুক্ত থাকবে।

আর উত্তর সিটিতে জবাইকৃত পশুর বর্জ্য তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণ এবং পশুর হাটগুলো দ্রুত পরিষ্কারের লক্ষ্যে করপোরেশনের নিজস্ব বর্জ্যবাহী ট্রাক, ভারী যন্ত্রপাতি, ওয়াটার বাউজারের পাশাপাশি আউটসোর্সিং থেকে অতিরিক্ত গাড়ি নিয়োজিত থাকবে। ঈদ উপলক্ষে বর্জ্য পরিবহন-সক্ষমতা কমপক্ষে ১০ হাজার টনে উন্নীতকরণে প্রয়োজনীয় যান-যন্ত্রপাতি নিয়োজিত থাকবে।
এ লক্ষ্যে ঈদের আগের দিন থেকে ঈদের পরবর্তী দুদিন নিরবচ্ছিন্নভাবে বর্জ্য অপসারণের জন্য বর্জ্যবাহী ড্রাম্প ট্রাক, খোলা ট্রাক, ভারী যান-যন্ত্রপাতি, পানির গাড়ি, পিকআপ ভ্যানসহ সর্বমোট ৪৯৩টি গাড়ি নিয়োজিত থাকবে। পরিবেশদূষণ রোধে ১১টি ওয়াটার বাউজার দিয়ে তরল জীবাণুনাশক মিশ্রিত পানি স্প্রের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানায় ডিএনসিসি।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন