বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আগামী ৯ মাসের মধ্যে শুরু হবে এ সড়কের নির্মাণকাজ। শেষ হবে ২০২৬ সালে। সড়কটি নির্মাণ করা হচ্ছে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্বের (পিপিপি) মাধ্যমে। চালুর পর সড়কটি ব্যবহারের জন্য যানবাহন থেকে টোল আদায় করা হবে। সওজের হিসাব অনুসারে, ২০৩০ সাল নাগাদ এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন অন্তত ৪০ হাজার যানবাহন চলাচল করবে।

চুক্তি অনুযায়ী, সড়কটি চার লেনে উন্নীত করতে ২ হাজার ৯৪ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দুটি। অন্যদিকে ভূমি অধিগ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন, পরামর্শক সেবা, প্রকল্পের কর্মকর্তাদের বেতন-ভাতাসহ আনুষঙ্গিক কাজে ১ হাজার ২০৯ কোটি টাকা ব্যয় করবে সরকার।

‘অ্যাভেইলঅ্যাবেলিটি পেমেন্ট’ পদ্ধতিতে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে। এ পদ্ধতিতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সড়ক নির্মাণের পর এর টোল আদায়সহ রক্ষণাবেক্ষণ করবে। তবে সংগৃহীত টোলের পুরোটা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেবে। বিনিময়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে প্রতি ৬ মাস পর সরকার ১০৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা দেবে। এভাবে ২১ বছরে ৪২টি কিস্তিতে সব মিলিয়ে ৪ হাজার ৫২৩ কোটি টাকা পরিশোধ করবে সরকার। এরপর সড়কটির নিয়ন্ত্রণ চলে আসবে সওজের কাছে।

নির্মিতব্য সড়কটির সাড়ে ৯ কিলোমিটার হবে উড়ালপথে। ভূমিতে থাকবে ৪ কিলোমিটার। এর বাইরে স্থানীয় যানবাহনের যাতায়াতের পথ, দুটি সেতু, চারটি ইন্টারচেঞ্জ, দুটি কালভার্ট, একটি ওভারপাস, প্রয়োজনীয় পদচারী–সেতু ও একটি টোলপ্লাজা নির্মাণ করা হবে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রকল্পটি সম্পর্কে সরকারের পিপিপি কর্তৃপক্ষের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সুলতানা আফরোজ বলেন, বেসরকারি বিনিয়োগ উৎসাহিত করে সরকারের সড়ক খাতে গুরুত্বপূর্ণ একটা প্রকল্পের চুক্তি সই হলো। দেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রায় এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

সুলতানা আফরোজ বলেন, সরকারের বাজেটে নানা ধরনের প্রকল্প হচ্ছে। পাশাপাশি পিপিপি পদ্ধতিতে গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। সওজের অধীন ছয়টি পিপিপি প্রকল্প রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা বাইপাস সড়ককে চার লেনের এক্সপ্রেসওয়েতে উন্নীত করার কাজ শুরু হয়েছে। বাকি প্রকল্পগুলো প্রস্তুতি পর্যায়ে আছে।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান রওশন আরা মান্নান, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলাম, সওজের পিপিপি সেলের সমন্বয়ক ও অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী এ কে মোহাম্মদ ফজলুল করিম।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন