বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মেজবাহর কাছ থেকে ১টি বিদেশি পিস্তল, ৫০টি গুলি, পিস্তলের লাইসেন্স ও ২টি মুঠোফোন জব্দ করা হয়েছে বলে জানায় র‍্যাব।

র‍্যাব বলছে, মেজবাহ একাধিক সশস্ত্র দেহরক্ষী নিয়ে এলাকায় দাপিয়ে বেড়াতেন। আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে তিনি এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে আসছিলেন।

আজ বৃহস্পতিবার র‍্যাব সদর দপ্তরের গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান প্রথম আলোকে বলেন, মেজবাহ নিজেকে ফেসবুকে আরএসবি গ্রুপের চেয়ারম্যান হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন। সশস্ত্র দেহরক্ষী নিয়ে রাস্তায় মেজবাহর ঘুরে বেড়ানোর কিছু ছবি সম্প্রতি তাঁর ফেসবুক আইডি থেকে প্রকাশ করা হয়। বিষয়টি র‍্যাবের সাইবার মনিটরিং টিমের নজরে আসে।

ছবিতে দেখা যায়, মেজবাহ ছাতা নিয়ে ঘুরছেন। তাঁর সঙ্গে রয়েছেন বিশেষ কটি পরা সশস্ত্র তিন যুবক।

default-image

র‍্যাব সূত্র জানায়, গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মেজবাহ বলেন, তিনি তাঁর দেহরক্ষী ফারুকসহ আরও কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে উত্তরা পশ্চিম থানা, টঙ্গীসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করে আসছিলেন। জনমনে ভয়ভীতি ও ত্রাস সৃষ্টির জন্য তিনি সশস্ত্র দেহরক্ষীদের নিয়ে প্রকাশ্যে রাস্তায় ঘুরে বেড়াতেন। আর সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁর ব্যক্তিগত আইডি থেকে আপলোড করেন।

default-image

র‍্যাবের ভাষ্যমতে, মেজবাহ অবৈধভাবে তিনজন সশস্ত্র দেহরক্ষী নিয়োগ দিয়েছেন। তিনি তাঁর বৈধ অস্ত্রের অবৈধ ব্যবহার করে আসছিলেন।

মেজবাহর বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন বলে জানায় র‍্যাব।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন