বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বস্তির ঘরে রাসেলের সঙ্গে নিজের স্ত্রীকে দেখতে পেয়ে ক্ষুব্ধ হন হৃদয়। একপর্যায়ে তিনি রাসেল ও স্ত্রীকে ছুরিকাঘাত করেন। রক্তাক্ত অবস্থায় রাসেলকে রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। অপরদিকে হৃদয়ের স্ত্রীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে বুধবার রাসেলের বাবা সোহরাব হাওলাদার বাদী হয়ে হৃদয়কে আসামি করে তুরাগ থানায় হত্যা মামলা করেছেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তুরাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আরিফ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, এলাকাবাসী বলছেন, রাসেলের সঙ্গে হৃদয়ের স্ত্রীর সম্পর্ক রয়েছে এমন সন্দেহে তাকে খুন করা হতে পারে। তবে বিষয়টি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। হৃদয়কে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

রাসেলের বাবা সোহরাব হাওলাদার সাংবাদিকদের বলেন, হৃদয় ফোন করে রাসেলকে তাঁর ঘরে ডেকে নেয়। এরপর রাসেলকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে বাইরে তালা দিয়ে পালিয়ে যায় হৃদয়।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন