বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও পরিবার জানায়, মঙ্গলবার রাত ৮টার পর কর্মস্থল নিউ এলিফ্যান্ট রোডের কার্যালয় থেকে বাইসাইকেলে করে তেজগাঁওয়ের মণিপুরের বাসায় ফিরছিলেন। রাত ৯টার দিকে কয়েকজন দুর্বৃত্ত তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। তার মোবাইল ফোন খোয়া গেছে। পথচারীরা তাকে প্রথম শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে রাত ১১টার দিকে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ধারণা করা হচ্ছে, ছিনতাইকারীদের হাতে তিনি খুন হন।

কেশবের মামা কমল রায় বলেন, তাঁর গ্রামের বাড়ি রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার বায়ানপাড়া গ্রামে। তার বাবার নাম মংলু রায়। তিনি পেশায় কৃষক। কেশব তেজগাঁওয়ের মণিপুরি পাড়ার একটি মেসে থাকতেন। দুই ভাইয়ের মধ্যে তিনি বড়। কেশব সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ে ষষ্ঠ সেমিস্টারে পড়ছিলেন।

তেজগাঁও মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শাহ আলম প্রথম আলোকে বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে কেশব রায় মারা গেছেন। তবে কয়জন ছিলেন সেটি এখনো জানা যায়নি। ঘটনাটি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন