বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আলী আকবর বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলায় আসামি হাসান আল মামুনের বিরুদ্ধে আগেই অভিযোগপত্র দিয়েছে পুলিশ। তবে তিনি পলাতক ছিলেন। আজ তিনি আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ এর বিরোধিতা করে। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত আসামির জামিন আবেদন নাকচ করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গত বছরের ২২ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থী ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক, ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও ধর্ষণে সহযোগিতার অভিযোগে মামলা করেন। রাজধানীর লালবাগ থানায় করা মামলাটি তদন্ত করে গত ১৭ জুন নুরুল হকসহ পাঁচজনকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার আবেদন করে পুলিশ। তবে হাসান আল মামুনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়।

ওই শিক্ষার্থীর অভিযোগ, আসামি হাসান আল মামুন বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তাঁকে ধর্ষণ করেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন