বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সচিব ফেরদৌস জামান বলেন, পরিবেশদূষণ, তথা জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য মানুষই দায়ী। মানুষ নির্বিচারে বৃক্ষ নিধন ও জলাশয় ভরাট করার ফলে প্রকৃতি তার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলছে। পরিবেশ বিপর্যয় রুখতে ব্যক্তিপর্যায়ে সচেতনতা তৈরি করতে হবে।

বিশেষ অতিথি বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আনোয়ারুল আলম চৌধুরী বলেন, শিশুদের জন্য পর্যাপ্ত খেলার মাঠ নেই, এটি দরকার। শিল্পায়নের কারণে পরিবেশের দূষণ হচ্ছে। এটি ঠেকাতে শিল্প খাতগুলোতে কেন্দ্রীয় বর্জ্য পরিশোধনাগার (সিইটিপি) স্থাপনে সরকারকে আরও জোর দিতে হবে।

পরিবেশ উন্নয়নে যেসব প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি বিশেষ অবদান রাখছেন, তাঁদের ২০১৫ সাল থেকে পল্লীমা গ্রীণ স্বর্ণপদক দেওয়া হচ্ছে। এবার এ স্বর্ণপদক পেয়েছেন পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের চেয়ারম্যান আবু নাসের খান।

আবু নাসের খান অনুষ্ঠানে বলেন, ‘নতুন প্রজন্ম পরিবেশকে ধারণ করবে চিন্তাশীলভাবে। চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের এই সময়ে সবুজ অর্থনীতিতে আরও জোর দিতে হবে, যেখানে একই সঙ্গে কর্মসংস্থান হবে আর পরিবেশের ক্ষতিও ন্যূনতম হবে। আর নতুন প্রজন্মকে পরিবেশ রক্ষা শেখানোর দায়িত্বটা আমাদের সবার।’

অনুষ্ঠানে পল্লীমা গ্রীণের চেয়ারম্যান লুতফর রহমানের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন পল্লীমা সংসদের সভাপতি আসাদুর রহমান, প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আউয়াল কামরুজ্জামান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে হাতের সুন্দর লেখা প্রতিযোগিতায় ২০০ শিক্ষার্থী অংশ নেয়। তাদের মধ্য থেকে পুরস্কার দেওয়া হয়। এ ছাড়া পুরস্কার দেওয়া হয় মার্শাল আর্ট কর্মসূচির ৩০ প্রশিক্ষণার্থীকে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন