default-image

রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে কিশোর-তরুণদের দুই পক্ষের বিরোধের জেরে হামলার ঘটনায় অপু (২০) নামের এক তরুণ নিহত হয়েছেন। এ সময় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে আরও দুই কিশোর আহত হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় কামরাঙ্গীরচরের ঝাউচর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত দুই কিশোর সিহাব ও শামীম স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে।

নিহত অপু নিউমার্কেটের একটি প্রসাধনসামগ্রীর দোকানের কর্মচারী ছিলেন। মা ও দুই বোনের সঙ্গে কামরাঙ্গীরচরের জাউলাহাটি চৌরাস্তা এলাকায় থাকতেন। তিন ভাই-বোনের মধ্যে অপু দ্বিতীয়। স্বজনেরা জানিয়েছেন, মা–বাবার বিচ্ছেদের পর থেকে সংসারের হাল ধরেছিলেন অপু। আর কামরাঙ্গীরচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ক্রিকেট খেলা নিয়ে বিরোধের জেরে মারামারির ঘটনাটি ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে তথ্য পেয়েছেন তাঁরা। বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে।

বিজ্ঞাপন

অপুর বন্ধু শাহাদত হোসেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) সাংবাদিকদের জানান, সকালে ঝাউচর এলাকায় শামীমকে মারধর করে স্থানীয় কয়েক কিশোর। এ ঘটনার মীমাংসা করতে সন্ধ্যা ছয়টার দিকে অপুসহ তাঁরা খেলার মাঠে যান। সেখানে এলাকার সঞ্জু ও ইব্রাহীমসহ ১০ থেকে ১২ জন লাঠিসোঁটা নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালায়। একপর্যায়ে হামলাকারীদের একজন কাঠের টুকরো দিয়ে অপুর মাথায় আঘাত করলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তখন শামীম আর সিহাবকেও ছুরিকাঘাত করা হয়। গুরুতর আহত অপুকে অচেতন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অপুর মামা হাবিবুর রহমান জানান, অনেক আগেই অপুর মা–বাবার বিচ্ছেদ হয়। পরিবারের হাল ধরতে অল্প বয়স থেকেই উপার্জন শুরু করেন অপু।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ ও পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, এই ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অপুর বন্ধু শাহাদত ও আল আমিনকে আটক করা হয়েছে। আর অপুর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0