বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বর্তমানে কারাগারে আছেন ১৩ জন। তাঁদের মধ্যে আছেন সাবেক সাংসদ এম এ আউয়াল।

এ হত্যা মামলায় ছয়জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

সাহিনুদ্দিন হত্যার ঘটনায় করা মামলাটি তদন্ত করছে ডিবি। মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা ডিবির মিরপুর বিভাগের উপকমিশনার মানস কুমার পোদ্দার আজ শুক্রবার প্রথম আলোকে জানান, তুহিন ও হারুনকে আটকের পর সাহিনুদ্দিন হত্যা মামলায় তাঁদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তাঁদের পাঁচ দিন করে রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে পাঠানো হয়েছে।

সাহিনুদ্দিনকে গত ১৬ মে পল্লবীর ডি ব্লকের সিরামিকস গেট এলাকায় তাঁর সাত বছর বয়সী ছেলের সামনে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

র‍্যাব বলছে, হত্যাকারীদের একজন ঘটনার পর সাবেক সাংসদ আউয়ালকে ফোন করে বলেছিলেন, ‘স্যার, ফিনিশ’। এরপরই আউয়ালকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব।

পল্লবীর আলীনগরে নিজের প্রতিষ্ঠানের আবাসন প্রকল্পের জমি দখল নির্বিঘ্ন রাখতেই আউয়াল তাঁর সহযোগীদের দিয়ে সাহিনুদ্দিনকে হত্যা করান বলে অভিযোগ ওঠে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন