বিজ্ঞাপন

বাসিন্দারা যাতে যত্রতত্র বর্জ্য না ফেলেন, এ জন্য সাড়ে ৬ লাখ ব্যাগ বিতরণ করা হবে। এবার ৩০৭টি জায়গায় পশু কোরবানি দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ সূত্র জানায়, জবাই করা কোরবানির পশুর বর্জ্য তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণ এবং কোরবানির পশুর হাটগুলো দ্রুত পরিষ্কারের লক্ষ্যে নিজস্ব বর্জ্যবাহী ট্রাক, ভারী যন্ত্রপাতি, ওয়াটার বাউজারের (পানি ছিটানোর গাড়ি) পাশাপাশি আউটসোর্সিং থেকে অতিরিক্ত গাড়ি রাখা হয়েছে। বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম তদারকি করতে ২২ সদস্যবিশিষ্ট একটি তদারকি দল গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া দুর্গন্ধ প্রতিরোধে প্রতিটি ওয়ার্ডে ভ্যানগাড়িতে করে ব্লিচিং পাউডার ছিটানো হবে।

আর দক্ষিণ সিটির জনসংযোগ শাখা থেকে জানানো হয়, সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার লক্ষ্যে সংস্থার প্রত্যেক ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে এক হাজার এবং আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তাদের দেড় হাজার পরিবেশবান্ধব ব্যাগ ইতিমধ্যে দেওয়া হয়েছে। সৃষ্ট বর্জ্য সম্পর্কিত তথ্য জানাতে একটি হটলাইন নম্বর (০১৭০৯৯০০৮৮) চালু করা হয়েছে।

দক্ষিণ সিটির মুখপাত্র ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবু নাছের জানিয়েছেন, ঈদুল আজহার দিন তথা ২১ জুলাই বেলা ২টা থেকে ২৪ জুলাই বেলা ২টা পর্যন্ত করপোরেশনের আওতাধীন এলাকা ও পশুর হাটগুলোর বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সরেজমিন পরিদর্শন করতে ১০টি দল গঠন করা হয়েছে। গত বছরের মতো এবারও মানুষের বাসাবাড়ি থেকে যথাসময়ে বর্জ্য অপসারণের সব ধরনের প্রস্তুতি ইতিমধ্যে শেষ করা হয়েছে।

এদিকে উত্তর সিটি জানিয়েছে, পরিবেশ সুরক্ষা ও দূষণমুক্ত রাখতে সড়ক ও পাড়া-মহল্লায় প্রায় ৫০ টন ব্লিচিং পাউডার এবং ৫ হাজার ২৫ লিটার তরল জীবাণুনাশক ছিটানো হবে। আর দক্ষিণ সিটি বলছে, তারা ৩০ টন ব্লিচিং পাউডার এবং ১ হাজার ৮০০ লিটার জীবাণুনাশক ছিটাবে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন