বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উৎসবের আগের দিন আজ পর্যন্ত সরকারি কোনো বিধিনিষেধ দেওয়া হয়নি। তবে নগরীতে ফানুস না ওড়াতে অনুরোধ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। ডিএমপির উপকমিশনার ফারুক হোসেনের সঙ্গে কথা হয় এ বিষয় নিয়ে। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘উৎসব উপলক্ষে কোনো ধরনের বিধিনিষেধ দেওয়া হয়নি। তবে পুরান ঢাকার মতো ঘিঞ্জি এলাকায় ফানুস-আতশবাজি এড়ানোর অনুরোধ করব। প্রয়োজনে খোলা স্থানে ওড়ানো যেতে পারে।’

এদিকে, ফানুস–আতশবাজি ব্যবহার নিরুৎসাহিত করতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচারণা চালাচ্ছেন অনেকেই। তাঁদের একজন ‘প্রত্যাশা’ মাদকবিরোধী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হেলাল উদ্দিন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘সামান্য কিছুক্ষণের আনন্দের জন্য অনেককেই পথে বসতে হতে পারে। ফানুসের দাম কম থাকায় ও সহজলভ্য হওয়ায় সহজে অনেকে সংগ্রহ করছে। এর ফলে নানা ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছে। এ জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা থাকলে ভালো হতো।’

default-image

হেলাল উদ্দিন আরও বলেন, ‘সংগঠনের পক্ষ থেকে আমরা সামাজিক মাধ্যমের বিভিন্ন গ্রুপে ও সরাসরি মানুষের সঙ্গে কথা বলে ফানুস না ওড়াতে নিরুৎসাহিত করেছি। যেহেতু সরকারি নির্দেশনা নেই, এখন নিজেদের সচেতন হতে হবে।’

এদিকে ফানুস ও আতশবাজি বিক্রিতে কর্তৃপক্ষের বিধিনিষেধ না থাকলেও এগুলো প্রকাশ্যে বিক্রি করছেন না পুরান ঢাকার বিক্রেতারা। ধূপখোলার এক মৌসুমি ঘুড়ি ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘থার্টি ফার্স্ট নাইটের ঘটনার পর আমরা নতুন করে ফানুস–আতশবাজি সংগ্রহ করিনি। আগে যেগুলো মজুত ছিল, সেগুলো যারা চাইছে, তাদের কাছে বিক্রি করছি।’

সাকরাইন উৎসবে পুরান ঢাকার নিরাপত্তা নিয়ে কথা হয় ডিএমপির লালবাগ বিভাগের উপকমিশনার জসিম উদ্দিনের সঙ্গে। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘উৎসবে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে, সেদিকে আমাদের নজর থাকবে। এ ছাড়া ঝুঁকি নিয়ে কোনো অনুষ্ঠান না করতে আমরা সবাইকে অনুরোধ করব।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন