বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, রিমন একজন মাদক কারবারি। তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় মাদকসহ বিভিন্ন অভিযোগে ১৮টি মামলা রয়েছে। পুলিশকে তথ্য দেওয়ার কারণে আলমগীরের ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন রিমন। এ কারণেই তাঁকে হত্যা করা হয়েছে। রিমনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে হত্যায় ব্যবহৃত একটি চাপাতি উদ্ধার করা হয়েছে।

গত শুক্রবার রামপুরার বউ বাজার আদর্শ গলিসংলগ্ন বরফগলিতে আলমগীরকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেন দুর্বৃত্তরা। ওই দিনই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তাঁর। থানা–পুলিশের পাশাপাশি ডিবি এ হত্যাকাণ্ডের ছায়া তদন্ত করছিল।

গোয়েন্দা কর্মকর্তা মাহবুব আলম জানান, আলমগীরের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রিমন ও তাঁর মাদক কারবারের সহযোগীদের গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। এ নিয়ে আলমগীরের ওপর তাঁদের ক্ষোভ ছিল। সেই ক্ষোভ থেকেই পরিকল্পিতভাবে তাঁকে খুন করা হয়।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন