default-image

‘প্রতিবন্ধী শিশুরা যাতে সাধারণ শিশুদের মতো জীবন যাপন করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে অবদান রাখতে পারে, সে লক্ষ্যে আমরা তাদের শিক্ষার ব্যবস্থা করেছি।

সরকারের কাছে আবেদন করেছি, তাদের সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার জন্য। কিন্তু দিনের পর দিন বিভিন্ন দপ্তর ঘুরেও কোনো ব্যবস্থা হয়নি। এক জায়গায় যাওয়া হলে আরেক জায়গায় যেতে বলা হয়। বিড়ম্বনা সব জায়গায়। বছরের পর বছর আমাদের মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে।’

প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়গুলোকে একসঙ্গে স্বীকৃতি ও এমপিওভুক্ত করার দাবিতে মানববন্ধনে নওগাঁর বদলগাছী প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আল আমিন এসব কথা বলেন। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আজ সোমবার এ মানববন্ধন হয়। বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি এই কর্মসূচির আয়োজন করে।

সংগঠনের আহ্বায়ক আরিফুর রহমান বলেন, ‘প্রতিবন্ধীরা মানবগোষ্ঠীর সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া সন্তান। প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জীবনের মান উন্নয়ন করে মূলধারায় সম্পৃক্ত করতে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষক-কর্মচারীদের মানবেতর জীবনযাপন থেকে মুক্তি দিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনায় আমাদের এই কর্মসূচি।’

বিজ্ঞাপন

গাইবান্ধার রামচন্দ্রপুর বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী এআর বিদ্যালয়ের শিক্ষক শারমিন খাতুন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের কোনো বেতন দেওয়া হয় না। স্বামী-সন্তান, যৌথ পরিবার নিয়ে পরিবার চালানো অসম্ভব। তবু আমরা আমাদের নিজস্ব টাকায় শিক্ষার্থীদের যাতায়াত, টিফিন, ওষুধ, শিক্ষার প্রয়োজনীয় উপকরণ দিয়ে থাকি। আমরা সরকারের কাছে আহ্বান জানাই, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীদের যেন এগিয়ে নেওয়া হয়।’

মানববন্ধন শেষে প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষকেরা ১১টি দাবি উপস্থাপন করেন। এগুলোর মধ্যে আছে প্রতিবন্ধিতা সম্পর্কিত সমন্বিত বিশেষ শিক্ষা নীতিমালা অনুযায়ী বিদ্যালয়গুলোর স্বীকৃতি ও এমপিও দেওয়া, স্বীকৃতির তারিখ থেকে শতভাগ বেতন-ভাতা ও সব সুবিধা নিশ্চিত করা। এ ছাড়া সব বিদ্যালয়ের প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের শতভাগ উপবৃত্তি দেওয়া, সব বিদ্যালয়ে প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের শিক্ষা কারিকুলাম অনুযায়ী বিনা মূল্যে পাঠ্যবই বিতরণ নিশ্চিত করার দাবিও করা হয়।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন