বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন সাংবাদিকদের বলেন, সম্প্রতি ময়মনসিংহ থেকে চারজন জঙ্গি গ্রেপ্তার হন। ওই দলেরই একজন সদস্য উজ্জ্বল মাস্টার। ২ সেপ্টেম্বর তিনি বছিলার এই বাসায় ওঠেন। নিজেকে তিনি প্রিন্টিং প্রেসের কর্মী বলে পরিচয় দিয়েছিলেন। স্ত্রীকে আনার কথা বললেও আনেননি। জাতীয় পরিচয়পত্রও জমা দেননি।

default-image

র‌্যাব আরও বলেছে, চারতলা ভবনের দোতলার যে ফ্ল্যাটে উজ্জ্বল মাস্টার ছিলেন, সেখানে তাঁর আরও দুই সহযোগী ছিলেন। তাঁরা গতকাল চলে গেছেন।

চারতলা ওই ভবন র‌্যাব সদস্যরা পাহারা দিচ্ছেন। ভবনের ভেতরে কাউকে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। ওই ভবনের দারোয়ান মহিউদ্দীন প্রথম আলোকে বলেন, এমদাদ ওরফে উজ্জ্বল মাস্টারের সঙ্গে আরেকজন ছিলেন। তিনি গতকাল চলে যান। পরে আরেকজন এসেছিলেন।

default-image

মহিউদ্দীন আরও বলেন, এমদাদ নিজেকে প্রিন্টিং প্রেসের মালিক বলে পরিচয় দিয়েছিলেন। তাঁর সঙ্গে থাকা দুজন প্রেসের কর্মী বলেও জানিয়েছিলেন। প্রতিদিন সকালে একটি পানির বোতল আর পলিথিনের ব্যাগ হাতে বেরোতেন। আজ স্ত্রীকে বাড়ি থেকে আনার কথা বলেছিলেন। বাড়ি নওগাঁ বলে শুনেছেন। তিনি সন্দেহজনক কোনো কিছু দেখেননি।

default-image

গত শনিবার ময়মনসিংহ শহরতলির খাকডহর এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) চার সদস্যকে আটক করে র‍্যাব। র‌্যাব জানায়, জেএমবির ওই চার সদস্য মূলত ডাকাতিসহ অন্যান্য উপায়ে লুটতরাজ করে দলের জন্য অর্থ সংগ্রহের কাজ করতেন। তাঁরা চারজন মিলে ময়মনসিংহে বড় ধরনের প্রতিষ্ঠানে ডাকাতি করে ময়মনসিংহের এক ব্যক্তির কাছে হস্তান্তরের জন্য নৌকায় করে ময়মনসিংহে এসেছিলেন।

আটক ব্যক্তিদের কাছ থেকে গুলিভর্তি একটি বিদেশি রিভলবার, একটি ম্যাগাজিন, তিনটি গুলি, তিনটি চাপাতিসহ দেশীয় অস্ত্র, আটটি বোমাসদৃশ বস্তু, দরজা ও লক ভাঙার বিভিন্ন সরঞ্জাম এবং একটি ইঞ্জিনচালিত নৌকা জব্দ করে র‌্যাব।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন