বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তাঁর স্ত্রী ও সন্তান নেই। গ্রামের বাড়ি নীলফামারীর ডোমারে তাঁর নিজের সম্পত্তি রয়েছে। সম্পত্তি ও অর্থ লেনদেন–সংক্রান্ত কোনো কারণে তাঁকে খুন করা হতে পারে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

এদিকে থানা–পুলিশের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী অন্য একটি বাহিনীও এ হত্যাকাণ্ডের ছায়াতদন্ত করছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র বলেছে, ঘটনাস্থলের পাশের একটি বাড়িতে থাকা ক্লোজড সার্কিট (সিসি) ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষণ করে খুনিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাঁকে গ্রেপ্তার করা গেলে হত্যার রহস্য বেরিয়ে আসবে।

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সোয়া সাতটার দিকে রাজধানীর শ্যামলীর হলিল্যান্ড নামের একটি গলিতে এক দুর্বৃত্ত আনোয়ার শহিদকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। শহিদের স্বজনেরা বলেন, বাসা থেকে বের হওয়ার সময় তিনি বলেছিলেন যে দিনাজপুর থেকে তাঁর সঙ্গে এক ব্যক্তি দেখা করতে এসেছেন। অবসরে যাওয়ার আগে দিনাজপুরে ১৫ বছরের মতো চাকরি করেন তিনি।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন