বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনে অংশ নেওয়া ফজলে রাব্বি নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, চীনে অধ্যয়নরত প্রায় ৮ হাজার ৯০০ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন বলে তাঁরা জানতে পেরেছেন। তাঁদের মধ্যে প্রায় ছয় হাজার শিক্ষার্থী অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সিনোফার্মের টিকা নিয়েছেন। কিন্তু ভিসা চালু না থাকায় টিকা নেওয়া সত্ত্বেও এই শিক্ষার্থীরা চীনে ফিরতে পারছেন না।

ফজলে রাব্বি বলেন, চীনে ফিরতে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য তাঁরা কয়েকবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তাঁদের ভিসা চালুর বিষয়ে কোনো সমাধান আসেনি।

চীনে অধ্যয়নরত আরেক শিক্ষার্থী আরিফ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ২১ মাস ধরে চীনের ভিসা বন্ধ। অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হলেও ইঞ্জিনিয়ারিং ও মেডিকেলের শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েছেন। অনলাইনে ব্যবহারিক ক্লাস করা সম্ভব হচ্ছে না। তা ছাড়া অনলাইনে পড়াশোনা করে পাওয়া সনদ চাকরির ক্ষেত্রে কতটা গ্রহণযোগ্য হবে, তা নিয়েও তাঁরা চিন্তিত।

আরিফ হোসেন বলেন, ‘টিকা নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা চীনে ফিরতে শুরু করেছেন। কিন্তু আমরা ফিরতে পারছি না। এ কারণে আমাদের শিক্ষাজীবন অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন